নামের মিলে ‘বিনা দোষে’ জেলে

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের রাথুরা গ্রামে রাকিবদের (২৫) বাড়ি। একটি মাদক মামলায় গত ২২ দিন ধরে তিনি জেলহাজতে। অভিযোগ উঠেছে, নামের মিল থাকায় অন্য এক রাকিবের বদলে তাকে জেল খাটতে হচ্ছে। মামলার অন্য আসামি ও রাকিবের প্রতিবেশীরাও এ দাবি করেছেন।

বুধবার সকালে রাকিবের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় সুনসান নীরবতা। রাকিবের মা রাহিমা বেগম (৪০) বারবার ছেলের কথা বলে মূর্ছা যাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, মিথ্যা মামলায় তাকে ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমার ছেলে গ্রামে কারও ক্ষতি করে নাই। তবে কেন তাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হলো?

রাকিবের বাবা শারীরিক প্রতিবন্ধী আক্তার হোসেন (৫০) কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, নিজের সর্বস্ব দিয়ে আমার একমাত্র ছেলেকে লেখাপড়া করাচ্ছি। এখন সে লেখাপড়ার পাশাপাশি পিকআপ দিয়ে স্থানীয় বিভিন্ন পোলট্রি ফার্ম থেকে মুরগি নিয়ে রাজধানীর উত্তরায় দোকানে দোকানে সরবরাহ করে।

মামলার বরাত দিয়ে আক্তার হোসেন জানান, চলতি বছরের ২৭ আগস্ট গাজীপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ২০৩ ক্যান বিয়ারসহ উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের রাথুরা গ্রামের সাইজউদ্দিনের ছেলে শহিদুল্লাহকে (৩২) আটক করে। শহিদুল্লাহর জবানবন্দি অনুযায়ী পরদিন ডিবি পুলিশের এসআই ওবায়দুর রহমান বাদী হয়ে শহিদুল্লাহ, তার ছোট ভাই আশরাফুল, রাকিব ও রুবেলের নাম উল্লেখ করে কালীগঞ্জ থানায় মাদক মামলা করেন। তবে মামলায় রাকিব ও রুবেলের বাবার নাম অজ্ঞাত ছিল। ওই মামলায় ডিবি পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়ার আগে আসামিদের পূর্ণাঙ্গ নাম-ঠিকানা যাচাই-বাছাই করার জন্য কালীগঞ্জ থানায় একটি অনুসন্ধান স্লিপ পাঠায়। পরে কালীগঞ্জ থানার পক্ষে ওই অনুসন্ধান স্লিপ নিয়ে উলুখোলা পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক মুকুল তালুকদার তদন্ত করে রাকিবের বাবার নাম আক্তার উল্লেখ করে পাঠিয়ে দেন এবং মামলার আরেক আসামি রুবেলকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

ওই মামলার ২ নম্বর আসামি রাথুরা গ্রামের সাইজউদ্দিনের ছেলে আশরাফুল মোবাইল ফোনে জানান, আসলে ওই দিনের ঘটনায় আক্তার কাকার ছেলে রাকিব জড়িত ছিল না। আমাদের সঙ্গে যে রাকিব ছিল সে আমার বন্ধু। তার বাড়ি পাড়াবর্তা (নাওটান) গ্রামে। বাবার নাম তাইজউদ্দিন তাজু।

আক্তার হোসেন আরও বলেন, নভেম্বর মাসের শুরুর দিকে আমরা জানতে পারি আমার ছেলে ওই মামলার আসামি। পরে সরল মনে ছেলেকে নিয়ে আমরা আদালতে আত্মসমর্পণ করতে গেলে আদালত আমার ছেলেকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এখন সে ২২ দিন ধরে জেলে আছে। আমি আমার নির্দোষ ছেলের মুক্তি চাই।

গলান বাজারের ব্যবসায়ী ও রাথুরা গ্রামের বাসিন্দা মহসিন শেখ জানান, রাকিব আসলে এ ধরনের ছেলে না। সে মাদক ব্যবসা তো দূরের কথা, মাদক সেবনও করে না। আমরা জানি সে পিকআপ দিয়ে উত্তরা এলাকায় পোলট্রি মুরগির ব্যবসা করে। একই কথা বলেন ওই গ্রামের বাসিন্দা আরেক মুদি দোকানি রাশেদ মিয়া।

রাথুরা দক্ষিণপাড়া জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা জালাল হোসেন জানান, আমি ১১ বছর ধরে এই মসজিদে ইমামের দায়িত্ব পালন করছি। রাকিবের নামে এ ধরনের কথা কখনও শুনিনি। সে খুবই নম্র, ভদ্র ও শান্ত ছেলে। একই কথা বলেন রাথুরা গ্রামের সুরুজ মিয়ার স্ত্রী হালিমা বেগম।

ওই গ্রামের বাসিন্দা রাথুরা মোল্লাবাড়ি জামে মসজিদের সহসভাপতি ষাটোর্ধ্ব হাজি আব্দুল বাতেন জানান, ছেলেটি খুব ভালো। নামের সঙ্গে মিল থাকায় বিনা দোষে জেল খাটছে। জেলে থাকায় তার ব্যবসা নষ্ট হচ্ছে।

কালীগঞ্জ থানার পক্ষে আসামিদের নাম-ঠিকানা যাচাই-বাছাইকারী পুলিশ কর্মকর্তা মুকুল তালুকদার বর্তমানে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) কোনাবাড়ী থানায় কর্মরত আছেন। তিনি মোবাইল ফোনে জানান, আমি মাত্র এক মাস কালীগঞ্জ থানার উলুখোলা ফাঁড়ির অধীনে কাজ করেছি। আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে নাম-ঠিকানা পাঠিয়েছি।

মামলার বাদী গাজীপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই ওবায়দুর রহমান বলেন, আমি মামলায় চারজনের নাম দিলেও শহিদুল্লাহ এবং আশরাফুলের বাবার নাম উল্লেখ করেছি। তবে রাকিব ও রুবেলের বাবার নাম জানতে না পারায় অজ্ঞাত রেখেছি। পরে ওই মামলা ডিবি পুলিশের এসআই মো. বদিউজ্জামান তদন্ত করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছেন।

তদন্ত কর্মকর্তা এসআই বদিউজ্জামান বলেন, এখানে আমার কিছু করার নেই। আমরা ডিবি পুলিশের পক্ষ থেকে অনুসন্ধান স্লিপ পাঠিয়ে কালীগঞ্জ থানা পুলিশের সহায়তায় পূর্ণাঙ্গ নাম নিয়েছি এবং মামলায় রুবেল নামে এক আসামির সম্পৃক্ততা না থাকায় তাকে অব্যাহতি দিয়ে মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছি।

কালীগঞ্জ থানার ওসি আনিসুর রহমান বলেন, আসলে যাকে তদন্ত করতে পাঠাই, সে তদন্ত করে দিলে আমি শুধু স্বাক্ষর করি। আমার পক্ষে যাচাই-বাছাইয়ের কোনো সুযোগ নেই। এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকলে তা দুঃখজনক।

গাজীপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আমির হোসেন জানান, আসলে আমরা অনুসন্ধান স্লিপের মাধ্যমে চূড়ান্ত প্রতিবেদন পাঠিয়েছি। অজ্ঞাত হিসেবে নাম দেওয়ার পর কালীগঞ্জ থানা পুলিশ বাবার নাম উল্লেখ করে আমাদের প্রতিবেদন পাঠিয়েছে। ওই সময় বিষয়টি নিয়ে আমার সন্দেহ হলে আমি তদন্ত কর্মকর্তাকে ফোনে ওই পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে চূড়ান্ত করতে বলি। পরে তিনি ফোনে নিশ্চিত করেন। তবে এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকলে তা অনাকাঙ্ক্ষিত।