আইন ছাড়া নিয়োগ হলে আজ্ঞাবহ ইসি আসবে: সুজন

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে দ্রুত আইন করার দাবি জানিয়েছে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)। বুধবার সংস্থাটির ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানিয়ে বলা হয়েছে, সরকারের সদিচ্ছা থাকলে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি বর্তমান ইসির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই আইন করা সম্ভব। সার্চ কমিটির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ হলে আগের মতোই আজ্ঞাবহ ব্যক্তিরা ইসিতে আসবেন। গত দুই কমিশনের মতো আজ্ঞাবহরা ইসিতে এলে নির্বাচন ব্যবস্থা একেবারে ধ্বংস হয়ে যাবে।

সুজনের কোষাধ্যক্ষ সৈয়দ আবু নাসের বখতিয়ারের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার। প্রশ্নের উত্তর দেন ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক মু. সিকান্দার খান, সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. শাহদীন মালিক, সুজনের নির্বাহী সদস্য অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ ও অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস প্রমুখ।

আইন অনুযায়ী ইসি গঠনের কথা বলা হয়েছে সংবিধানে। কিন্তু ৫০ বছরেও আইন হয়নি। সার্চ কমিটির মাধ্যমে ২০১২ সালে কাজী রকিব উদ্দিন এবং ২০১৭ সালে কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে ইসি গঠন করা হয়। ইসি গঠনে আইনের খসড়া করে গত মাসে আইনমন্ত্রী আনিসুল হককে দিয়েছে সুজন। মন্ত্রী বলেছেন, স্বল্প সময়ে এত গুরুত্বপূর্ণ আইন করা সম্ভব নয়। সরকারই আইনের খসড়া করছে। এ প্রসঙ্গে অধ্যাপক সিকান্দার খান বলেন, ভালো আলামত দেখা যাচ্ছে না।

ড. শাহদীন মালিক হতাশা প্রকাশ করে বলেন, প্রত্যাশা ছিল সরকার স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় গ্রহণযোগ্য ইসি গঠনে উদ্যোগী হবে। আইন করার সদিচ্ছা থাকলে এখনও অনেক সময় আছে। কিন্তু সরকার আইন করতে চায় না। আজ্ঞাবহ সার্চ কমিটি দিয়ে আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশন গঠনে সরকার বদ্ধপরিকর বলে মনে করেন শাহদীন মালিক।

তিনি বলেন, কাজী রকিব ও নুরুল হুদার কমিশন ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। সরকার ও আইনমন্ত্রীর বক্তব্য ও আচরণে মনে হচ্ছে আগামী নির্বাচনেও জনগণ ভোট দিতে পারবে না।

বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ভাতের অধিকার অনেকটা নিশ্চিত হলেও ভোটের অধিকার নিশ্চিত হয়নি। অতীতে সার্চ কমিটির মাধ্যমে রকিব উদ্দিন কমিশন ও নূরুল হুদা কমিশন পেয়েছি। এই দুই কমিশনের চরম পক্ষপাতদুষ্ট আচরণে নির্বাচন প্রক্রিয়াই প্রায় ধ্বংস হয়ে গেছে। সরকার কি এই দুই কমিশনের সব অপকর্মের দায় এড়াতে পারবে?

আইনমন্ত্রী সময় স্বল্পতার কথা বললেও বদিউল আলম মজুমদার মনে করেন সরকারের সদিচ্ছা থাকলে আইন করে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যেই স্বাধীন অসুন্ধান কমিটির মাধ্যমে ইসি গঠনে যোগ্য ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া সম্ভব।

তিনি বলেন, আইন করতে আরও পাঁচ বছর লাগলে ততদিনে নির্বাচন ব্যবস্থা পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। এতে অনিয়মতান্ত্রিক ক্ষমতা বদলের পথ প্রশস্ত করবে।

সুজন সম্পাদক বলেন, নূরুল হুদা কমিশনের ‘অনিয়ম’ তুলে ধরে রাষ্ট্রপতিকে দুটি চিঠি দেওয়া হয়েছে। তার প্রাপ্তিস্বীকার পত্র না পাওয়ায় রাষ্ট্রপতি চিঠি পেয়েছেন কি-না, নিশ্চিত না। আবার রাষ্ট্রপতিকে চিঠি দিয়ে জানতে চাওয়া হবে, তিনি ব্যবস্থা নিয়েছেন কি-না।

রোবায়েত ফেরদৌস বলেন, ইসি  বলেন, ইসি গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ব্যর্থ হলে রাষ্ট্র ব্যর্থ হয়।