সার্কের নিউ ইয়র্ক বৈঠক বাতিল, চিঠি পেয়েছে ঢাকা

নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ অধিবেশনের সাইড লাইনে আফগানিস্তান ইস্যুতে প্রস্তাবিত দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) বৈঠকটি বাতিল হয়ে গেছে। আগামী শনিবার সার্কভুক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের ‘ইনফরমাল’ ওই বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বৈঠক আয়োজন প্রশ্নে সদস্য রাষ্ট্রগুলো ঐকমত্যে পৌঁছাতে না পারায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে আনুষ্ঠানিক পত্র পাঠিয়েছে কাঠমাণ্ডুস্থ সার্ক সদর দপ্তর তা বাতিল করে। ঢাকায় পাঠানো চিঠিতে বৈঠক বাতিলের কথা জানানো হলেও সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সম্মতি বা অসম্মতির  বিষয়ে কিছু উল্লেখ করা হয়নি বলে দাবি করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা বুধবার মানবজমিনের সঙ্গে আলাপে বলেন, আমরা কোন ধরণের শর্ত ছাড়াই বৈঠকের পক্ষেই পূর্বে মতামত দিয়েছিলাম। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বৈঠকটি হবে না বলেই জানানো হয়েছে। চিঠি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিউ ইয়র্কে থাকা পররাষ্ট্র সচিবকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে বলে জানান সেগুনবাগিচার ওই কর্মকর্তা। গণমাধ্যমে এ নিয়ে নানা রকম খবর দেখছেন জানিয়ে ওই কর্মকর্তা বলেন, জাতিসংঘে যেহেতু আফগানিস্তানের কোন প্রতিনিধি অংশ নেয়ার সুযোগ পাননি, সেহেতু তাদের প্রতিনিধিত্ব ছাড়াই সার্কের বৈঠক হবে এটাই তো সঙ্গত।

তাছাড়া তালেবান সরকারকে তো সার্কের বাকি সদস্যরা স্বীকৃতি দেয়নি। এদিকে ভারতীয় বার্তাসংস্থা এএনআই বুধবার এক প্রতিবেদনে সার্কের বৈঠক বাতিলের বিষয়ে বলেছে, সার্ক-এর বৈঠকে আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী তালেবান-ই প্রতিনিধিত্ব করুক, এমনটাই দাবি করেছিল পাকিস্তান। তবে ভারতসহ কয়েকটি সদস্য দেশ এই প্রস্তাবে আপত্তি জানায়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়, সার্কের বৈঠকে আফগানিস্তানের প্রতিনিধি হিসেবে তালেবানের অংশগ্রহণ নিয়ে ঐক্যমত ও সম্মতির অভাবে অচালাবস্থার সৃষ্টির প্রেক্ষিতেই শেষ পর্যন্ত বৈঠকটি বাতিল হয়ে যায়। জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের পরপরই প্রতিবছর সার্কের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে রুটিন বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা হয়। এটা অনেকটা অনানুষ্ঠানিক বৈঠক হয়। সেখানে মূখ্য বা নীতি নির্ধারণী কোন সিদ্ধান্ত হয় না। করোনার কারণে গত বছর ভারচ্যুয়ালি বৈঠকটি হয়েছিল। যাতে ঢাকা থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন যুক্ত হয়েছিলেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর দাবি, সার্কের ‘বেশিরভাগ সদস্য দেশ’ চেয়েছিল চলতি বছর বৈঠকে আফগানিস্তানের আসনটি খালি থাকুক। কিন্তু তাতে রাজি হয়নি পাকিস্তান। ফলে শেষ পর্যন্ত বৈঠকটি বাতিল হয়ে যায়। উল্লেখ্য, ২০ বছর পর গত ১৫ই আগস্ট আফগানিস্তান দখলে নেয় তালেবান। চলতি মাসের শুরুর দিকে তালেবান অন্তবর্তী সরকারের প্রথম মন্ত্রিসভার ঘোষণা দেয়। আফগান সব সম্প্রদায় ও গোত্রের প্রতিনিধিত্বমূলক প্রশাসনের প্রতিশ্রুতি দেয়া হলেও প্রধান প্রধান মন্ত্রণালয়গুলোতে তালেবানের কট্টরপন্থী এবং অনুগতদেরই নিয়োগ দেওয়া হয়। তবে তালেবান সরকার গঠন করলেও এখনো কোনো দেশই সেই সরকারকে স্বীকৃতি দেয়নি। ১৯৮৫ সালে বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, মালদ্বীপকে নিয়ে যাত্রা শুরু করে সার্ক। ২০০৭ সালে আফগানিস্তান আনুষ্ঠানিকভাবে সার্কে যোগ দেয়। বর্তমানে সংস্থাটির সদস্য সংখ্যা আট।