নাইজেরিয়ায় বন্দুকধারীদের হামলায় নিহত ৫৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পশ্চিম নাইজেরিয়ার জামফারা অঞ্চলে বন্দুকধারীর হামলায় ৫৩ জন নিহত হয়েছে। এ হামলায় আহত হন বেশ কয়েকজন গ্রামবাসী। একটি ডাকাতদল গ্রামবাসীদের লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছোঁড়ে, মাঠে কৃষকদের আক্রমণ করে এবং অনেক গ্রামবাসীকে তাড়া করে পার্শ্ববর্তী জঙ্গলের দিকে তাড়িয়ে দিয়ে ব্যাপক লুটপাট চালায়।

শনিবার (১২ জুন) পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে আল জাজিরা ও এএফপি।

স্থানীয়রা বলছে, এ হামলার ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবারের মধ্যে। জুরমি জেলার কদাওয়া, কাওয়াটা, মাদুবা, গন্ডা সামু, সোলাভা ও আসসওয়া গ্রামে হামলা চালায় মোটরসাইকেলে করে আসা বন্দুকধারীরা। তারা বাসিন্দাদের ওপর গুলি চালায়। ডাকাত দলটি কৃষকদের জমিতে গিয়েও তাদের ওপর আক্রমণ করে।

জামফারা পুলিশের মুখপাত্র মোহাম্মদ শেহু বলেছেন, শুক্রবার ১৪টি মরদেহ রাজ্যের রাজধানী গুসাউতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। হামলার পর ওই এলাকায় পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, আরও ৩৯টি মরদেহ উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী শহর দৌরানে দাফন করা হয়েছে।

দৌরানের বাসিন্দা হারুনা আবদুল করিম বলেন, ‘গতকাল আমরা গ্রাম থেকে ২৮টিসহ মোট ৩৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছি এবং তাদের এখানে দাফন করেছি।’

শেষকৃত্যে অংশ নিতে আসা স্থানীয় বাসিন্দা মুসা আরজিকা বলেন ‘ নিহতদের শেষকৃত্যে অংশ নেওয়া বেশ বিপজ্জনক ছিলো। কারণ দস্যুরা পাশের জুরমি বনে অবস্থান নেওয়ায় যে কোন সময় আবারও হামলা করতে পারতো’।

শুক্রবার এই ঘটনায় জামফারার গভর্নর বেলো মাতোওয়ালে একটি বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে তিনি নিজেদের রক্ষা করা জন্য স্থানীয়দের আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত ডিসেম্বরে এই জামফারা প্রদেশেরই একটি স্কুল থেকে সাড়ে আটশ শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে নিয়ে গিয়েছিল সন্ত্রাসীরা। পরে মুক্তিপণের বিনিময়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল।

এদিকে জাতিসংঘের অঙ্গসংগঠন ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অব মাইগ্রেশন (আইওএম) তাদের প্রতিবেদনে জানিয়েছে, গত ১০ বছরে সন্ত্রাসীদের হামলায় নাইজেরিয়ার উত্তরপশ্চিম ও কেন্দ্রীয় অঞ্চলে ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন, বাস্তুচ্যুত হয়েছেন প্রায় ৭ লাখ। এর মধ্যে শুধু জামফারা প্রদেশেই বাস্তুচ্যুতের সংখ্যা ১ লাখ ২৪ হাজারের বেশি।