চার প্রতিষ্ঠানের নমুনা পরীক্ষা স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: মহামারি কভিড-১৯-এর ভুয়া প্রতিবেদন দেয়ার অভিযোগে রাজধানীর চারটি বেসরকারি পরীক্ষাগারে নমুনা পরীক্ষা সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

পাশাপাশি পরীক্ষাগারগুলোকে নিজস্ব ভবনের বাইরে অন্য বুথ থেকে কভিড নমুনা সংগ্রহ বন্ধের ও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সাময়িকভাবে বন্ধ হওয়া পরীক্ষাগারগুলো হলো বিজয় সরণির সিএসবিএফ হেলথ সেন্টার, বাংলামোটরের স্টিমজ হেলথ কেয়ার, পুরানা পল্টনের আল জামী ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও মেডিনোভা মেডিক্যাল সার্ভিসেস লিমিটেডের মিরপুর শাখা।

কভিডের নমুনা পরীক্ষা করে ভুয়া রিপোর্ট দেয়া হচ্ছে, এমন অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে এ ব্যবস্থা নেয়া হলো বলে জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) ডা. ফরিদ হোসেন মিঞা।

তিনি বলেন, বিদেশগামীদের নমুনা পরীক্ষার ক্ষেত্রে নানা অনিয়ম করছিল এসব প্রতিষ্ঠান। এসব অভিযোগ পাওয়ার পর তাদের কার্যক্রম বন্ধ রাখতে বলেছি। এছাড়া নমুনা পরীক্ষার অনুমতি পাওয়া অন্য বেসরকারি হাসপাতালগুলো বেশকিছু নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

তার স্বাক্ষরে এসব নির্দেশনা বুধবার পাঠানো হয়েছে বেসরকারি পরীক্ষাগার ও হাসপাতালে। চিঠিতে বলা হয়, সম্প্রতি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিদেশগামী যাত্রীদের ভুয়া কভিড-১৯ রিপোর্ট দেয়াসহ বেশ কয়েকটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

তিনি বলেন, ‘এ ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ড জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ এবং দেশের ভাবমূর্তি ভয়ঙ্করভাবে ক্ষুন্ন করেছে।’

নির্দেশনা

>> পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বিদেশগামী যাত্রীদের কভিড-১৯ নমুনা সংগ্রহের জন্য ল্যাবগুলোর নিজস্ব ভবনের বাইরে স্থাপিত সব ধরনের নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্রের কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

>> বিদেশগামী যাত্রীদের নমুনা কোনো অবস্থাতেই বাসাবাড়ি থেকে সংগ্রহ করা যাবে না।

>> বিদেশগামী যাত্রীদের নমুনা সংগ্রহের সময় মূল পাসপোর্ট যাচাই করে, পাসপোর্ট নম্বর উল্লেখসহ নমুনা সংগ্রহ ফরম পূরণ করতে হবে। কোনোক্রমে পাসপোর্টের ফটোকপি গ্রহণযোগ্য হবে না।

>> বিমানবন্দরে বিদেশগামী যাত্রীদের কভিড-১৯ পরীক্ষা সনদ, পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে যাচাই করা হবে। শুধু টেলিফোন/মোবাইল নম্বর প্রমাণ হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে না।

>> সাত দিনের মধ্যে কোনো পজিটিভ রিপোর্ট থাকলে ওই যাত্রীকে দেশত্যাগের অনুমতি দেয়া যাবে না।

>> কোনো বিদেশগামী যাত্রী কভিড-১৯ পজিটিভি হলে, সে কমপক্ষে সাত দিন পর শুধু সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত ল্যাবে পুনরায় পরীক্ষা করাবেন এবং পরবর্তী সময় যদি নেগেটিভ সনদ পান, সেক্ষেত্রে দেশত্যাগ করতে পারবেন।

>> কোনো আরটি-পিসিআর ল্যাবের ব্যাপারে কোনো অভিযোগ উঠলে ল্যাবটির কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করা হবে। তদন্ত করে পরবর্তী অনুমোদনের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

>> কোনো বিদেশগামী যাত্রীর কভিড-১৯ পরীক্ষা করার ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি উভয় স্থানে প্রথমে পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে যাচাই করে দেখতে হবে যে সে গত ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে অন্য কোথাও আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করেছে কিনা। করে থাকলে এবং পজিটিভ হলে তাকে সাত দিন পর্যন্ত পুনরায় আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করার সুযোগ দেয়া যাবে না।

গত বছর কভিড সংক্রমণ শুরুর আগে বিভিন্ন দেশ থেকে এসে আটকা পড়েন অন্তত দেড় লাখ বাংলাদেশি। তাদের ফেরার ক্ষেত্রে ‘করোনাভাইরাসমুক্ত’ সনদ থাকা বাধ্যতামূলক করে দেয় বিভিন্ন দেশ।

ফলে গত বছর ২০ জুলাই ঢাকায় জেলা সিভিল সার্জনের তত্ত্বাবধানে মহাখালীর ডিএনসিসি মার্কেটের অস্থায়ী কভিড-১৯ আইসোলেশন সেন্টারে বিদেশগামীদের নমুনা পরীক্ষা সংগ্রহ করে পরীক্ষার সনদ দেয়া শুরু হয়।

পরে দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতাল ও পরীক্ষাগারকেও নমুনা পরীক্ষার অনুমতি দেয় সরকার।