কভিড-১৯-এর নতুন শনাক্ত ২৫৭৬ মৃত্যু ৪০

নিজস্ব প্রতিবেদক: মহামারি কভিড-১৯-এর সংক্রমণ বাড়তে থাকার হার অব্যাহত রয়েছে। মরণব্যাধি এ রোগে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত এক দিনে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা আগের দিনের চেয়ে বেড়েছে; মৃতের মোট সংখ্যা পৌঁছে গেছে ১৩ হাজারের কাছাকাছি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গতকাল সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও দুই হাজার ৫৭৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, মৃত্যু হয়েছে ৪০ জনের।

এর আগে এক দিনে এর চেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছিল গত ২৮ এপ্রিল। সেদিন দুই হাজার ৯৫৫ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়ার কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আর বুধবার শনাক্ত হয়েছিলেন দুই হাজার ৫৩৭ জন নতুন রোগী।

গত এক দিনে নতুন আক্রান্তদের নিয়ে দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে আট লাখ ২০ হাজার ৩৯৫ জন হয়েছে। আর মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১২ হাজার ৯৮৯ জন।

সরকারি হিসাবে, আক্রান্তদের মধ্যে এক দিনে আরও দুই হাজার ৬১ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তাদের নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন সাত লাখ ৫৯ হাজার ৬৩০ জন।

বাংলাদেশে কভিডের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত বছর ৮ মার্চ, তা আট লাখ পেরিয়ে যায় এ বছর ৩১ মে। সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যে গত সাত এপ্রিল রেকর্ড সাত হাজার ৬২৬ জন নতুন রোগী শনাক্তের খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ বছর ১১ মে তা ১২ হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ১৯ এপ্রিল রেকর্ড ১১২ জনের মৃত্যুর খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বিশ্বে শনাক্ত কভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ইতোমধ্যে ১৭ কোটি ৪৪ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৩৭ লাখ ৫৯ হাজারের বেশি মানুষের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে ৫১০টি ল্যাবে ১৯ হাজার ৪৪৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৬১ লাখ ২৬ হাজার ২৩৮টি নমুনা।

গতকাল নমুনা পরীক্ষা অনুযায়ী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ২৫ শতাংশ। এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯২ দশমিক ৫৯ শতাংশ। মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৮ শতাংশ।

গত এক দিনে যারা মারা গেছেন, তাদের ৩১ জন পুরুষ আর নারী ৯ জন। তাদের ৩১ জন সরকারি হাসপাতালে, ছয়জন বেসরকারি হাসপাতালে, তিন জন বাসায় মারা যান।

তাদের মধ্যে ২২ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি, আটজনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, সাতজনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছর, একজনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছর, একজনের বয়স ২১ থেকে ৩০ ও একজনের বয়স ১০ বছরের কম ছিল।

মৃতদের মধ্যে আটজন ঢাকা বিভাগের, ১২ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, আটজন রাজশাহী বিভাগের, ছয়জন খুলনা বিভাগের, দু’জন সিলেট বিভাগের ও চারজন রংপুর বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

এ পর্যন্ত মৃত ১২ হাজার ৯৮৯ জনের মধ্যে ৯ হাজার ৩৫০ জন পুরুষ এবং তিন হাজার ৬৩৯ জন নারী।