কভিড ও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে বললেন ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক: কভিড মহামারির পাশাপাশি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধেও ‘জয়ী’ হওয়ার জন্য বিএনপি নেতাকর্মীদের প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

গতকাল নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, ‘দেশে এখন দুই শত্রু। একদিকে আওয়ামী লীগ শত্রু, আরেকদিকে কভিড শত্রু। এই শত্রু, এই দুই দানব তছনছ করে দিচ্ছে আমাদের সব কিছু। সেজন্য আমরা বাধাগ্রস্ত হচ্ছি। কিন্তু এটাকে আমাদের জয় করতে হবে তো। পৃথিবীর সমস্ত বড় বড় বিজয়, বড় বড় বিপ্লব, বড় বড় অর্জন কিন্তু একটা স্লোগানে- আমরা করব জয়। এই স্লোগান দিয়েই আমাদের জয় করতে হবে।’

এজন্য নেতাকর্মীদের সংগঠিত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘শর্টকাট কোনো রাস্তা নেই। একটা যুদ্ধ যখন করতে হবে, সেই যুদ্ধে আপনাকে পুরোপুরিভাবে ইকুইপ্ট হতে হবে। যুদ্ধ করতেই হবে। এরা আপনাদের এমনি এমনি ক্ষমতা দিয়ে দেবে না। এরা একেবারে ডিক্টেটর বনে গেছে, কর্তৃত্ববাদী বনে গেছে এবং জানে যে, নির্বাচন করে তারা কোনো দিন জিততে পারবে না। সুতরাং নির্বাচন নির্বাচন খেলা করবে।’

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে নিয়ে সরকার ‘মিথ্যা প্রচার চালাচ্ছে’ বলেও অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল।

জিয়াউর রহমানের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জিয়া স্মৃতি পাঠাগার ও জাতীয়তাবাদী প্রকাশনা সংস্থার উদ্যোগে আয়োজিত বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তার জীবন ও কর্মের ওপর লেখা বইগুলো পড়ারও পরামর্শ দেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘আমাদের বেশি করে বই পড়তে হবে। জিয়াউর রহমানকে জানতে হলে তার ওপর লেখা বই পড়তে হবে। আমাদের স্বাধীনতাকে জানতে হলে বই পড়তে হবে।’

জিয়াকে নিয়ে লেখা বিভিন্ন বইয়ের পাশাপাশি কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা পড়ারও পরামর্শ দেন বিএনপি মহাসচিব।

জিয়া স্মৃতি পাঠাগারের সভাপতি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালামের সভাপতিত্বে পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক মো. জহির দিপ্তী আলোচনা অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন দলের যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক মোসাদ্দেক হোসেনে বুলবুল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল।

অনুষ্ঠানে জিয়া স্মৃতি পরিষদের মো. শহিদুল ইসলাম, সাঈদ উদ জামান, সঞ্জয় দে রিপনসহ অন্য নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।