ফের রূপগঞ্জের হার

 

 

ক্রীড়া ডেস্ক: চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএল) এখনও নিজেদের ঠিক মেলে ধরতে পারেনি লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। যে কারণে দলটি শুক্রবার ফের দেখল হারের মুখ। এদিন খেলাঘর সমাজ কল্যাণ সমিতির বিপক্ষে নাঈম ইসলামের দল হেরেছে ৭ উইকেটে।

শুক্রবার আল-আমিনের প্রথম টি-টোয়েন্টি হাফ সেঞ্চুরিতে রূপগঞ্জ ১৩৯ রানের লক্ষ্য দেয় খেলাঘরকে। জবাব দিতে নেমে মেহেদী হাসান মিরাজ জয়ের ভিত গড়েন দারুণ ফিফটিতে। পরে জহুরুল ইসলাম চার মেরে হাফ সেঞ্চুরি করেন, যা দলকে পৌঁছে দেয় জয়ের বন্দরে। ৭ উইকেটে জিতে প্রথম পয়েন্ট পায় খেলাঘর।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুক্রবার রূপগঞ্জ করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৩৮ রান। ৪২ বলে ৫১ রান করেছিলেন আল-আমিন। স্বল্প পুঁজি নিয়ে বল হাতে নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি সাবেক ডিপিএল চ্যাম্পিয়নরা। মিরাজ ও জহুরুলের ব্যাটে, ১৯.৩ ওভারে ৩ উইকেটে জয় নিশ্চিত করে খেলাঘর।

আগে ব্যাট করতে নামা রূপগঞ্জের ওপেনার আজমির আহমেদ বলের সাথে পাল্লা দিয়ে রান তুললেও দলটির আরেক ওপেনার সাদমান ইসলামের ব্যাট ছিল শ্লথ। ২২টি বল খেললেও মাত্র ৮ রান আসে সাদমানের ব্যাট থেকে। মাসুম খানের বলে দৃষ্টিকটুভাবে আউট হন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। একই ওভারে নাঈম ইসলামকেও শিকার করেন মাসুম। তবে রূপগঞ্জের রানের চাকা সচল রেখেছিলেন আজমির। ২১ বলে ২৮ রান করে লেগ স্পিনার রিশাদ হোসেনের শিকারে পরিণত হয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। আজমিরের ইনিংসে ছিল ৩টি চার ও ১টি ছক্কা। ৪৫ রানে ৩টি উইকেট হারায় রূপগঞ্জ।

চতুর্থ উইকেটে জুটি গড়েন আল আমিন জুনিয়র ও সাব্বির রহমান। আল আমিন বলের সাথে পাল্লা দিয়ে রান তুলতে থাকলেও ধীরগতিতে শুরু করেন সাব্বির। ২টি চারের সাহায্যে ২১ বলে ২৩ রান করে সাব্বির শিকার হন মেহেদী হাসান মিরাজের বলে।

একপ্রান্ত আগলে রেখে অর্ধশতক তুলে নেন আল আমিন। ৪০ বলে ৫০ রান স্পর্শ করেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ৪২ বলে ৫১ রান করে শেষ ওভারে খালেদ আহমেদের বলে আউট হন আল আমিন। জাকের আলি অনিক ১ চার ও ১ ছক্কায় ১২ বলে ১৯ রান করে অপরাজিত থাকেন। খেলাঘরের পক্ষে মাসুম ২টি এবং মিরাজ, খালেদ ও রিশাদ ১টি করে উইকেট শিকার করেন।

১৩৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২৫ রানের মধ্যে দুই ওপেনার ইমতিয়াজ হোসেন আর সাদিকুর রহমানকে হারিয়ে ফেলেছিল খেলাঘর। সেখান থেকে তৃতীয় উইকেটে ৯৭ রানের ম্যাচ জেতানো জুটি গড়েন মিরাজ-জহুরুল। ৪৫ বলে ৬ চার আর ১ ছক্কায় মিরাজের ৫৪ রানের ইনিংসে ভর করেই সহজ জয়ের পথে হেঁটেছে খেলাঘর। এছাড়া ৪৪ বলে ৩টি করে চার-ছক্কায় ৫৩ রানে অপরাজিত থাকেন অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম। তিনি হয়েছেন ম্যাচসেরা।