পশ্চিমবঙ্গে আজ থেকে লকডাউন, চলবে ১৫ দিন

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যজুড়ে আজ রোববার সকাল ৬টা থেকে কার্যত লকডাউন শুরু হয়ে গেল, যা চলবে আগামী ১৫ দিন অর্থাৎ ৩০ মে পর্যন্ত। আগে থেকে রাজ্যে যে আংশিক লকডাউন জারি করা হয়েছিল, সেটাই সংশোধিত করল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার। এবার অনেকগুলো ক্ষেত্রে আগের চেয়ে আরও বেশি কঠোর বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে। করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্যই আবারও এমন কড়া বিধিনিষেধ জারি করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশাসন। সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দুস্তান টাইমস ও আনন্দবাজার এ খবর জানিয়েছে।

আজ রোববার সকাল ৬টা থেকে ৩০ মে সকাল ৬টা পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে ১৫ দিনের জন্য জারি হয়ে গেল এই ‘‌প্রায় লকডাউন’‌। রাজ্যে করোনা নিয়ন্ত্রণে এই কঠোর বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে। এ সময় বিধিনিষেদ না মানলে বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে নিয়ম ভঙ্গকারীকে কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে বলে প্রশাসন জানিয়েছে।

আগেই রাজ্যের পক্ষ থেকে বেশ কিছু বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছিল। এবার সেই বিধিনিষেধ সংশোধন করে আরও কঠোর করা হলো। রাজ্যের নতুন সিদ্ধান্তে স্কুল, কলেজ, সরকারি-বেসরকারি অফিস, বাস, ট্যাক্সি, অটোরিকশা, প্রাইভেট গাড়ি, গাড়ি, মেট্রো, ফেরি সার্ভিস এবং জরুরি পরিষেবা ছাড়া অন্য পণ্য পরিবহণের গাড়ি আগামী ১৫ দিন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। রাত ৯টা থেকে সকাল ৫টা পর্যন্ত ঘরের বাইরে বের হওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি থাকছে।

গতকাল শনিবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌করোনা রুখতে প্রশাসন আরও কিছুটা কঠোর বিধি জারি করছে। এর ফলে নতুন করে সব সরকারি, বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকছে। তবে জরুরি পরিষেবা, যেমন ওষুধ, সংবাদমাধ্যম, দুধ ইত্যাদির জন্য যান চলাচল জারি থাকবে। স্কুল, কলেজ, পলিটেকনিক, আইটিআই বন্ধ থাকবে। বন্ধ থাকছে বাস, অটোরিকশা, ট্যাক্সি। তবে জরুরি পরিষেবার জন্য ট্যাক্সি, অটো চলতে পারে। দুধ, মাংসসহ যেগুলো নিত্যপ্রয়োজনীয় বাজার, মুদি দোকান- সেগুলো শুধু সকাল ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।’

তবে খোলা থাকছে পেট্রোল পাম্প, অটো রিপেয়ারিংয়ের দোকান, রান্নার গ্যাসের বণ্টন কেন্দ্র। সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মিষ্টির দোকান খোলা থাকছে। খোলা থাকছে ওষুধ ও চশমার দোকান। বন্ধ থাকছে পার্ক, চিড়িয়াখানা, অভয়ারণ্য ও পার্ক। তবে এসবের রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চালানো যেতে পারে। এ ছাড়া বন্ধ থাকছে সব রকমের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও শিক্ষামূলক জমায়েত। বিয়েবাড়িতে ৫০ জনের বেশি জমায়েত করা যাবে না। সৎকার অনুষ্ঠানে ২০ জনের বেশি উপস্থিত থাকা যাবে না। ব্যাংক সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত খোলা থাকছে। এটিএম বুথ খোলা থাকবে। চা বাগানে ৫০ শতাংশ হাজিরা চালু থাকবে। চালু থাকছে ই-কমার্স ও হোম ডেলিভারি। সিনেমা হল, শপিং মল, স্পা, জিম, বিউটি পার্লার বন্ধ থাকবে। চটকলে ৩০ শতাংশ কর্মী দিয়ে কাজ করতে হবে। এ ছাড়া পানি, বিদ্যুৎ, বিপর্যয় মোকাবিলা, টেলিকম, ইন্টারনেট ও সংবাদমাধ্যম খোলা থাকবে।