কভিড দ্বিতীয় ঢেউয়ের আগে পুনরুদ্ধারের পথে ছিল অর্থনীতি

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে কভিড-১৯ মহামারির আঘাত প্রকাশ পায় ২০২০ সালের মার্চে। এরপর কয়েক মাস তেমন একটা দেখা যায়নি করোনার প্রভাব। অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে, যা চলে গত মার্চ পর্যন্ত। কিন্তু এপ্রিলে দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে।

এক সেমিনারে এমন পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। জরিপটি চালায় সানেম ও দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশন যৌথভাবে। জরিপের ফল উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ও সানেমের নির্বাহী পরিচালক ড. সেলিম রায়হান। আলোচক হিসেবে ওয়েবিনারে উপস্থিত ছিলেন অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন ও ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সভাপতি রিজওয়ান রহমান।

বাংলাদেশের ৮টি বিভাগের ৩৬টি জেলার মোট ৫০৩টি ক্ষুদ্র, ছোট, মাঝারি ও বড় ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের ওপর এ জরিপ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৫৩টি উৎপাদন খাতের ও ২৫০টি সেবা খাতের অন্তর্ভুক্ত প্রতিষ্ঠান। ২০২১ সালের এপ্রিলের ৬ থেকে ১৮ তারিখের মধ্যে এ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শীর্ষ পদাধিকারীদের সঙ্গে ফোনালাপের মাধ্যমে এ জরিপ পরিচালনা করা হয়।

সানেম ও দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশন ২০২০ সালের জুলাই থেকে ব্যবসায় আস্থা জরিপটি পরিচালনা করে আসছে। ২০২০ সালের জুলাইয়ে পরিচালিত জরিপে ব্যবসার নাজুক পরিস্থিতি প্রতিফলিত হয়েছিল, ২০২০ সালের অক্টোবরে দ্বিতীয় পর্যায়ের জরিপে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের আভাস পাওয়া গিয়েছিল। ২০২১ সালের জানুয়ারিতে পরিচালিত জরিপে ব্যবসায়ীরা মোটামুটিভাবে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের সম্পর্কে আশাবাদী ছিলেন।

২০২১ সালের এপ্রিলে পরিচালিত এ জরিপের অংশ নেয়া ২২ শতাংশ ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, তারা প্রণোদনা প্যাকেজের সুবিধা পেয়েছেন। ৬৯ শতাংশ ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, তারা প্রণোদনা প্যাকেজ পাননি। ৯ শতাংশ ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, তারা প্যাকেজ সম্পর্কে জানেন না। জরিপকৃত বৃহৎ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রণোদনা প্যাকেজ পেয়েছে ৪৬ শতাংশ, মাঝারি ৩০ শতাংশ ও ৯ শতাংশ ক্ষুদ্র ও ছোট প্রতিষ্ঠান প্রণোদনা পেয়েছে।