কুষ্টিয়ার ট্রেন দুর্ঘটনায় প্রকৌশলীকে সাময়িক বরখাস্ত

২২ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও কুষ্টিয়ার সঙ্গে ৫টি জেলার রেল যোগাযোগ এখনো স্বাভাবিক হয়নি। এদিকে দুর্ঘটনার জন্য রেলের উদ্ধর্তন উপ-সহকারি প্রকৌশলী সাইফুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

শনিবার (৬ মার্চ) বিকেল নাগাদ লাইন মেরামত শেষে রেল যোগাযোগ পুনরায় স্বাভাবিক হতে পারে বলে জানিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় আরও অন্য কারো অবহেলা আছে কি-না তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ইঞ্জিন, বগি সরিয়ে রেল যোগাযোগ স্বাভাাবিক করতে কাজ করছে রেল বিভাগের কর্মীরা।

গতকাল শুক্রবার (৫ মার্চ) দুপুর ২টার দিকে কুষ্টিয়া শহরের মিলপাড়া এলাকার বড় স্টেশনের অদূরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে কোনো হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও ট্রেনের লাইন দুমড়ে মুচড়ে যায়। বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রলির সঙ্গে ট্রেনটির সংঘর্ষের ফলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিকেল ৫টা থেকে উদ্ধার কাজ শুরু হয়।

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, ২২টি বগি সম্বলিত গমবোঝাই ট্রেনটি ঈশ্বরদী থেকে ফরিদপুর যাচ্ছিলো। পথে কুষ্টিয়া বড় স্টেশন ক্রস করে ট্রেনের পাঁচটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এ ঘটনায় কুষ্টিয়ার সাথে খুলনা, রাজশাহী, গোয়ালন্দ ও ফরিদপুরের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া রুটে রেললাইন মেরামতের কাজ চলছে। এই কাজে ব্যবহৃত একটি ট্রলিতে করে রাজবাড়ী থেকে কুষ্টিয়া আসছিলেন প্রকৌশল বিভাগের লোকজন। তারা কোন সিগন্যাল ছাড়াই ওই লাইনে ট্রলি ব্যবহার করছিলেন বলে অভিযোগ ওঠে। পরে একই লাইনে বিপরীত দিক থেকে মালবাহী ট্রেনটি ঢুকে পড়লে ট্রলির সঙ্গে সংঘর্ষ হয়।

প্রকৌশলী বীরবল জানান, ১২ ঘণ্টা প্রচেষ্টা চালানোর পর ৪টি বগি সরিয়ে নেয়া সম্ভব হয়েছে। আরো একটি বগি সরানোর কাজ চলছে। ১৭০ জন কর্মী একটানা উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। বিকেল নাগাদ কাজ শেষ হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই লাইনে টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসসহ মোট চারটি ট্রেন যাতায়াত করে।