বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ: বাদীকে বিয়ে করে ২ আসামির জামিন

নাটোর ও ফেনীতে ধর্ষণ মামলার দুই আসামির সঙ্গে আদালত চত্বরে ধর্ষণের অভিযোগকারীর বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।
নাটোরে বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার পর ধর্ষকের জামিন মঞ্জুর করে জেলা ও দায়রা জজ আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালত চত্বরে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।
অপরদিকে সোনাগাজীতে হাইকোর্টের আদেশ অনুযায়ী জামিন পেতে ধর্ষণ মামলার আসামির সঙ্গে অভিযোগকারীর বিয়ে হয়।
নাটোর প্রতিনিধি জানান, মামলা সূত্রে জানা যায়, নাটোর গুরুদাসপুর উপজেলার মকিমপুর মাঠে ছাগল চরাতে গিয়ে ভুক্তভোগীর সঙ্গে পরিচয় হয় মানিকের। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই তরুণীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে মানিক। পরবর্তীতে মানিক  গত ১৮ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে তরুণীকে ধর্ষণ ও নগ্ন ভিডিও ধারণ করে মানিক। ওই তরুণী বিয়ের জন্য চাপ দিলে কাজি ডেকে আনার কথা বলে মানিক পালিয়ে যায়। পরে নগ্ন ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় সে। ওই ঘটনায় ১৯ অক্টোবর বাদী হয়ে গুরুদাসপুর থানায় ধর্ষণ মামলা করেন ওই তরুণী।
ওই দিনই মানিককে গ্রেপ্তারের পর আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ। এরপর বৃহস্পতিবার মামলার শুনানির দিন আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মঞ্জুরুল ইসলাম মানিক হোসেনের জামিন আবেদনের পাশাপাশি উভয় পরিবার বিয়ে দেওয়ার জন্য সম্মতি প্রকাশ করেছে বলে বিষয়টি আদালতকে অবহিত করে।
পরে নাটোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আব্দুর রহমান সরদার বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার পর মানিক হোসেনের জামিন মঞ্জুর করেন। এ নিয়ে আদালত পাড়ায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। তবে এটি একটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন আসামি পক্ষের আইনজীবী। এ সময় আদালতে বাদী এবং আসামি পক্ষের আত্মীয়রা উপস্থিত ছিলেন।
সোনাগাজী প্রতিনিধি জানান, হাইকোর্টের আদেশে ফেনী কারাগার কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে কারাফটকে ধর্ষণের মামলার গ্রেপ্তার জহিরুল ইসলাম জিয়ার সঙ্গে ভুক্তভোগীর বিয়ে বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপরে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মনিরুজ্জামানের উপস্থিতিতে কারাবন্দী জহিরুল ইসলাম জিয়া ও ভুক্তভোগী তরুণীর সঙ্গে ছয় লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে হয়। ধর্মীয় নিয়ম অনুযায়ী বিয়ে পড়ান মাওলানা আক্তার হোসেন। বিয়ে রেজিস্ট্রি করেন নিকাহ রেজিস্ট্রার আব্দুর রহিম।
এর আগে সকালে কারাগারে আসে দুই পরিবার। দুপুরে জেলা কারাগারের জেলার শাহাদাৎ হোসেনের অফিস কক্ষে প্রবেশ করেন ওই তরুণী। সেখানে উপস্থিত ছিলেন কারাবন্দী জহিরুল হক জিয়া।
জেলা কারাগারের সুপার আনোয়ারুল করিম বলেন, হাইকোর্টের আদেশের প্রেক্ষিতে উভয় পরিবারের উপস্থিতিতে তাদের সম্মতিক্রমে কারাবন্দী জহিরুল হক জিয়া ও তরুণীর বিয়ে হয়েছে। বিয়ের অনুষ্ঠানে আইনজীবী রফিকুল ইসলাম খোকন, নুরুল ইসলাম সোহাগ, কাজি বুলবুল আহমদ সোহাগ, চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম ভুট্টু,  কারা কর্তৃপক্ষের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে উভয় পরিবারের সম্মতির স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে। নির্দেশনা অনুয়ায়ী বিয়ের কাবিনসহ যাবতীয় তথ্যাদি হাইকোর্টে প্রেরণ করা হবে।
বিয়ে সম্পন্নের পর কারাফটকে হাইকোর্টের আদেশের সন্তুষ্টি প্রকাশ করে কনে বলেন, আমরা গরিব মানুষ। আদালতের আদেশে আমি ন্যায়বিচার পেয়েছি, আমার অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সুন্দর সংসার জীবন গড়তে আমি সবার দোয়া চাই এবং আমার স্বামীর দ্রুত মুক্তি চাই।
দুই পরিবার জানায়, কুচক্রী মহলের চক্রান্তে আমরা বিভ্রান্ত ছিলাম। আদালতের আদেশে ছেলে-মেয়ের বিয়ে হয়েছে। আমাদের প্রত্যাশা তারা উভয়ে দাম্পত্য জীবনে সুখী হবে।
সোনাগাজী উপজেলায় ধর্ষণের ঘটনায় গত ২৭ মে তরুণী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ জিয়া উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠায়। পুলিশের তদন্তে ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ৩০ জুন আদালতে মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।
গত ১ নভেম্বর আইনজীবী ফারুক আলমগীর চৌধুরী তার কারাবন্দী মক্কেল জিয়ার পক্ষে হাইকোর্টে জামিন আবেদন করলে আদালতে একটি দ্বৈত বেঞ্চে প্রেমিকা ধর্ষণে অভিযুক্ত হয়ে আটক জিয়াউল হক জিয়াকে বিয়ের করার শর্তে জামিন দিতে সম্মত হয়। হাইকোর্টের আদেশ ১১ নভেম্বর জেলা কারাগারে পৌঁছায়।
বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম এবং বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের আদালত জানায়, উভয় পক্ষ সম্মত থাকলে ফেনী জেলা কারাগার কর্তৃপক্ষ আদেশ প্রাপ্তির ৩০ দিনের মধ্যে বিয়ে সম্পন্ন এবং এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন হাইকোর্টকে অবহিত করবে। বিয়ে রেজিস্ট্রি হয়েছে কারা কর্তৃপক্ষের এমন প্রতিবেদন হাইকোর্টে জমা হলে আদালতে জামিনের আদেশ প্রদান করবে।