অক্সফোর্ডের টিকার প্রতিশ্রুতি পেয়েছে বাংলাদেশ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :  অক্সফোডেঅর গবেষকদের উদ্ভাবিত কোভিড-১৯ এর সম্ভাব্য টিকা পাওয়ার প্রতিশ্রুতি মিলেছে বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন। সোমবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা চীনের ভ্যাকসিন টেস্টের অনুমোদন দিয়েছি। ইতোমধ্যে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন বাংলাদেশে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি আমরা পেয়েছি। সেটা ভারতের সেরাম কোম্পানি রেডি করছে এবং বেক্সিমকো এই সেরামের সাথে মিলে যৌথভাবে বাংলাদেশে দেওয়ার ব্যবস্থা নেবে। সরকারিভাবেও এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বাংলাদেশে অক্সফোর্ডের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হবে কি না জানতে চাইলে জাহিদ মালেক বলেন, তারা এ বিষয়টি এখনও বলেনি। আমরা অপেক্ষা করছি অক্সফোর্ডের কী কী জানার আছে বাংলাদেশের কাছে।

সেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়ার (এসআইই) কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে টাইমস অব ইন্ডিয়া গত বুধবার জানিয়েছে, এই বছরের মধ্যেই ভারতীয়রা অক্সফোর্ডের গবেষকদের উদ্ভাবিত কোভিড-১৯ টিকা পাবেন বলে আশা করা হচ্ছে।যুক্তরাজ্যের ওষুধ কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনকার সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে অক্সফোর্ডের টিকাটি উৎপাদন করবে ভারতের পুনেভত্তিক সেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া।

এই টিকা পেতে বাংলাদেশও আগ্রহী; এর পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অংশীদার হতে চাওয়ার কথা ইতোমধ্যে ঢাকার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।প্রাথমিক পরীক্ষাগুলোতে সাফল্যের মুখ দেখার পর মানবদেহে প্রয়োগের চূড়ান্ত পরীক্ষায় পর্যায়ে রয়েছে  কোভিশিল্ড নামের টিকাটি।

অক্সফোর্ড ছাড়া অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান বা দেশ টিকা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে কি না জানাতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত আর কোনো দেশের অনুরোধ পাইনি, যারা এখানে টেস্ট করতে চায়।তবে টিকা সংগ্রহে রাশিয়ায় চিঠি পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, আমরা রাশিয়াতে চিঠি পাঠিয়ে দিচ্ছি, ভ্যাকসিনের বিষয়ে রাশান অ্যাম্বসেডরও কথা বলেছে। চিঠি ফরেন মিনিস্ট্রির মাধ্যমে রাশিয়ার হেলথ মিনিস্টারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

রাশিয়া টিকা দেওয়ার বিষয়ে কোনো আভাস দিয়েছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, রাশিয়া জিটুজি করতে চায়, তারা বলেছে বাংলাদেশে যদি ভ্যাকসিন তৈরি করার ফ্যাসিলিটি থাকে তাহলে তারা বাংলাদেশেও তৈরি করার জন্য অনুমোদন দিতে পারে।

বাংলাদেশে বেশ কয়েকটি কোম্পানির সক্ষমতা রয়েছে ভ্যাকসিন তৈরি করার।

এদিন সচিবালয়ে কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, কোরিয়া আমাদের সাথে তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে চায়। তারা সফলতার সাথে করোনাভাইরাস মোকাবেলা করেছে, কিন্তু আবার তাদের সংক্রমণ দেখা গিয়েছে বড় আকারে। তারা বেশ কয়েকটি পিসিআর মেশিন ও কিট দেবেন বলে পত্র দিয়ে গেছেন।

অ্যান্টিজেন টেস্টের জন্য কোরিয়া কিট দেবে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, কিছু দিন আগে সরকার যে অ্যান্টিজেন টেস্ট অনুমোদন করেছে সেই অ্যান্টিজেন টেস্ট বিষয়ে সাহায্য করবে এবং ৭ লাখ ডলারের কিট আমাদের দেবে। অল্প দিনের মধ্যে সেগুলো আমাদের হাতে আসবে।

অ্যান্টিজেন টেস্ট শুরু করার প্রক্রিয়া চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, অ্যান্টিজেন কিট আনার প্রক্রিয়া শুরু করেছি। কোরিয়ান কিট পেলেও টেস্ট শুরু হয়ে যাবে। কোরিয়াতে অ্যান্টিবডি টেস্ট করে না বলেও জানিয়েছেন।করোনাভাইরাস শনাক্তে সীমিত আকারে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা শুরু করার সিদ্ধান্তের কথা গত সোমবার জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।