করোনার অ্যান্টিজেন টেস্ট অনুমোদনের সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাস শনাক্তে অ্যান্টিজেন টেস্ট অনুমোদন দিয়েছে সরকার। তবে অ্যান্টিবডি টেস্ট এ মুহূর্তে অনুমোদন দেওয়া হচ্ছে না।  সোমবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে তাইওয়ানের পক্ষ থেকে দেওয়া করোনা সুরক্ষা সামগ্রী গ্রহণ শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ কথা জানান।

করোনার তিন ধরনের টেস্ট হয় জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, একটা হলো পিসিআর টেস্ট, যেটা আমরা করে যাচ্ছি। আর দুটি টেস্ট- একটি অ্যান্টিজেন এবং অপরটি র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট।স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, পিসিআর টেস্ট, একটা ল্যাব থেকে এখন প্রায় ৮৮টি ল্যাবে টেস্ট হয়। কিন্তু টেস্টের সংখ্যা সেভাবে বাড়েনি। কারণ কিছু লোকের অনীহা দেখা দিয়েছে।

পিসিআর টেস্টের জন্য আমরা যে ফি নির্ধারণ করেছিলাম, তা কমিয়ে দেওয়া হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ২০০ টাকার টেস্ট ১০০ টাকা, ঘরে বসে টেস্ট ৫০০ থেকে ৩০০ টাকা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে আমাদের কাছে অনুরোধ এসেছে, যারা টেস্ট করে বিদেশে যান, তাদের সাড়ে তিন হাজার থেকে কমিয়ে এক হাজার ৫০০ টাকা করে দেওয়া হয়েছে।এসবই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনা করে নির্দেশনা পেয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

আর দুটি টেস্ট- একটি অ্যান্টিজেন এবং অপরটি র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট। এটাও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে বলছি যে, র‌্যাপিড টেস্ট আমরা এ মুহূর্তে করব না, করছি না। এটার সিদ্ধান্ত এখনও নেগেটিভ। অ্যান্টিজেন টেস্ট যেটা আছে, সেটা আমরা এখন অ্যালাও করব, সীমিত আকারে। সেটা হবে আমাদের হাসপাতালগুলোতে (সরকারি হাসপতাল) এবং আমাদের যে সরকারি ল্যাব আছে, সেখানে। যেখানে আমাদের ল্যাব নেই, সরকারের তত্ত্বাবধানে আমরা সেখানে অ্যান্টিজেন টেস্টের ব্যবস্থা আগামীতে করব। অর্থাৎ অ্যান্টিজেন টেস্ট আমরা সরকারিভাবে অ্যালাও করব। কিন্তু অ্যান্টিবডি টেস্ট আমরা এখনও অ্যালাও করব না। অ্যান্টিজেন টেস্টে কম খরচে স্বল্প সময়ে রিপোর্ট আসে এবং ফলের নির্ভরতা ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

জাহিদ মালেক বলেন, মাস্ক ব্যবহার খুবই জরুরি। মাস্ক ব্যবহারের মাধ্যমে সংক্রমণ কমানো সম্ভব। করোনা ছাড়া অন্যান্য রোগীদের চিকিৎসায় চলতি মাসেই বিভিন্ন হাসপাতাল নন কোভিড হিসেবে নির্ধারণ করা হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি অনেক ভালো। সংক্রমণ ও মৃত্যু অনেকাংশে কমেছে। সুস্থ হওয়ার হারও বাড়ছে। টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে ঘরে থেকে চিকিৎসা নিয়ে করোনা রোগী ভালো হয়ে যাওয়ায় বর্তমানে হাসপাতালে ৭০ শতাংশ শয্যা খালি পড়ে আছে।স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, টিকার ক্ষেত্রে কোনো রাজনীতিতে পড়েনি বাংলাদেশ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে কথা বলা আছে। অনুমোদিত টিকাগুলোর ২০ শতাংশ টিকা নিম্নআয়ের দেশগুলো পাবে। তাছাড়া আন্তরাষ্ট্রীয়ভাবেও যোগাযোগ করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেটাই চূড়ান্ত হবে।

এসময় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, যে সংকট চলছে, দুর্যোগ চলছে, এটা চ্যালেঞ্জ। সরকার চমৎকারভাবে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সহযোগিতা করছে। সুরক্ষা সামগ্রী যথেষ্ট রয়েছে কিন্তু তৃণমূল পর্যায়ে আরও পৌঁছানো দরকার।বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, সবাই সবার মতো এগিয়ে আসলে সম্মিলিতভাবে সংকট উত্তরণ সম্ভব।