সুপ্রিম কোর্টের সব অবকাশকালীন ছুটি বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসের কারণে চলতি বছরে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল সুপ্রিম কোর্ট। এ কারণে সুপ্রিম কোর্টের সব অবকাশকালীন ছুটি বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। গত ৬ আগস্ট থেকে এ নির্দেশনা কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে প্রশাসন।

আজ বুধবার এ তথ্য জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও হাইকোর্ট বিভাগের স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান।
এর আগে প্রধান বিচারপতির আদেশক্রমে মঙ্গলবার এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত সব বিচারপতির অংশগ্রহণে ফুলকোর্ট সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সুপ্রিম কোর্টের ২০২০ খ্রিস্টাব্দের বর্ষপঞ্জির ৬ আগস্ট-পরবর্তী অবকাশকালীন সব ছুটি বাতিল করা হলো।

২০২০ সালের সুপ্রিম কোর্টের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ৬ আগস্টের পর ৩১ আগস্ট থেকে ৫ অক্টোবর, ২৫ ও ২৭ অক্টোবর এবং ২০ ডিসেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত অবকাশকালীন ছুটি ছিল।

করোনা মহামারির এ সময়ে ২৬ মার্চ থেকে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে। এর সঙ্গে মিল রেখে আদালতেও সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। পরে দফায় দফায় সাধারণ ছুটির মেয়াদও বাড়ানো হয়।

এর মধ্যে সরকারের অধ্যাদেশ জারির পর ১১ মে থেকে আদালতে ভার্চুয়াল বিচারকাজ শুরু হয়। ওই অধ্যাদেশটি পরে আইনে পরিণত করা হয়। সর্বশেষ গত ১৬ মে দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে সাধারণ ছুটির মেয়াদ ৩০ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়। তবে সরকার ৩০ মের পর সাধারণ ছুটি আর না বাড়ালেও আদালত অঙ্গনে নিয়মিত কার্যক্রমের পরিবর্তে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বিচারকাজ অব্যাহত থাকবে জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

কিন্তু গত ৩০ জুলাই অধস্তন আদালতে ৫ আগস্ট থেকে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচারকাজ চালুর সিদ্ধান্ত দেয় সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন। সে অনুসারে অধস্তন আদালতে বিচারকাজ শুরু হয়।

এর আগে ৩ আগস্ট একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

রেজিস্ট্রার জেনারেল স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উপযুক্ত বিষয়ে নির্দেশিত হয়ে জানানো যাচ্ছে, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের বিচারপতিদের অংশগ্রহণে ৬ আগস্ট বিকেল ৩টায় ফুলকোর্ট সভা অনুষ্ঠিত হবে।

সভার আলোচ্যসূচির বিষয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে শারীরিক উপস্থিতিতে সুপ্রিম কোর্টের বিচার কার্যক্রম পরিচালনা এবং সুপ্রিম কোর্টে ২০২০ খ্রিস্টাব্দের বার্ষিক অবকাশকালীন ছুটি হ্রাস/বাতিলকরণ প্রসঙ্গে আলোচনা হবে।

ওই সভা শেষে জানা যায়, করোনাকালে শারীরিক উপস্থিতি ছাড়া ভার্চুয়াল আদালতের পাশাপাশি শারীরিক উপস্থিতিতে হাইকোর্টে বিচারকাজ চলবে।

সে অনুসারে ভার্চুয়াল আদালতের পাশাপাশি ১২ আগস্ট সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দীর্ঘ চার মাস পরে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচারকাজ শুরু হয়। সবশেষে ছুটি বাতিল করে ১৮ আগস্ট নতুন বিজ্ঞপ্তি দেয় সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।