সাহেদসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করবে দুদক

নিজস্ব প্রতিবেদক : রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।এনআরবি ব্যাংক লিমিটেডের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। মামলায় আসামিরা হচ্ছেন, রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইব্রাহিম খলিল, এনআরবি ব্যাংকের ঢাকার কর্পোরেট হেড অফিসের সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার মো. সোহানুর রহমান ও একই ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ওয়াহিদ বিন আহমেদ। দুদকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ মঙ্গলবার এ কথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়, আসামিরাা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণার মাধ্যমে ক্ষমতার অপব্যবহার করে এনআরবি ব্যাংক হতে ২০১৪ সালের ৯ নভেম্বর থেকে ২০১৮ সালের ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত সুদসহ ১ কোটি ৫১ লাখ ৮১ হাজার ৩৬৫ টাকা আত্মসাৎ করেন।

অভিযোগে আরও বলা হয়, রিজেন্ট হাসপাতালের চলতি হিসাবটি খোলার সময় গ্রাহকের নিকট থেকে কোন টাকা জমা গ্রহণ করা হয়নি। সাহেদ এনআরবি ব্যাংকের একজন নতুন গ্রাহক। তিনি ২০১৪ সালের ১৭ নভেম্বর হিসাবটি খোলেন। কিন্তু হিসাব খোলার ১ (এক)দিন আগে ১৬ নভেম্বর প্রিন্সিপাল অফিসার মো. সোহানুর রহমান ও ভাইস প্রেসিডেন্ট ওয়াহিদ বিন আহমেদ উভয়ে এসএমই ব্যাংকিং ঋণ মঞ্জুরীর জন্য সুপারিশ প্রেরণ করেন। ঋণ মঞ্জুরীর পূর্ব পর্যন্ত এ হিসাবে কোন লেনদেন ছিল না।

ঋণ মঞ্জুরীপত্রের শর্তানুযায়ী নির্ধারিত সময়ে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করা হয়নি। সাহেদ হাসপতাল থেকে ঋণ মঞ্জুরীপত্রের শর্তানুযায়ী এফডিআর করেছিলেন। পরবর্তীতে ঋণ গ্রহীতা সাহেদ ঋণ পরিশোধ না করায় ব্যাংক তার এ এফডিআর ক্লোজ করে ঋণ সমন্বয় করেন। এতে দেখা যায় সাহেদ স্বেচ্ছায় কখনও ঋণের টাকা পরিশোধ করেননি। তিনি অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের জন্য ঋণ গ্রহণ করেছিলেন। তিনি ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের জন্য ২টি টার্ম লোনে ২(দুই) কোটি টাকা ঋণ মঞ্জুরী নিশ্চিত হয়ে ১(এক) কোটি টাকা এফডিআর করেছেন।

সাহেদসহ অন্যান্যরা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণার মাধ্যমে এনআরবি ব্যাংক হতে ২ টি টার্ম ঋণ রিসিডিউলসহ ২ কোটি ৪ লাখ ৯০ হাজার ৯৮৭ টাকা ঋণ গ্রহণ ও বিতরণ করেছেন। এ সময়ে ৬৫ লাখ ৭৯ হাজার ২২৭ টাকা সুদ ও অন্যান্য চার্জ ধার্য করা হয়েছে। এরমধ্যে সাহেদের এফডিআর থেকে ১ কোটি ১৮ লাখ ৮৯ হাজার ৩৪৯ টাকা সমন্বয় করার পর সুদসহ অবশিষ্ট ব্যাংকের ১ কোটি ৫১ লাখ ৮১, হাজার ৩৬৫ টাকা আত্মসাতের অপরাধ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে

দুদকের সহকারী পরিচালক মো. সিরাজুল হক বাদি হয়ে শিগগিরই মামলাটি করা হবে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।