কুয়েতে নতুন রাষ্ট্রদূত আশিকুজ্জামান

নিজস্ব প্রতিবেদক: মানবপাচার সংক্রান্ত অভিযোগে কুয়েতে গ্রেপ্তার জাতীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপুলকে ‘নেপথ্যে’ থেকে সহযোগিতার জন্য কুয়েতের বর্তমান রাষ্ট্রদূতের নাম আসার মধ্যেই দেশটিতে নতুন রাষ্ট্রদূত নিয়োগ দিয়েছে সরকার। ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের সিনিয়র ডিরেক্টিং স্টাফ (আর্মি) মেজর জেনারেল মো. আশিকুজ্জামানকে উপসাগরীয় দেশটির নতুন রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে আজ সোমবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

১৯৮৮ সালে সেনাবাহিনীতে কমিশন পাওয়া আশিকুজ্জামান সিয়েরা লিওন, আইভোরি কোস্ট এবং ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে কাজ করেছেন। তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিফেন্স স্টাডিজ এবং স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছেন। একজন গলফার ও চিত্রশিল্পী হিসেবেও তিনি সুপরিচিত।

গত ৬ জুন সংসদ সদস্য পাপুলকে গ্রেপ্তার করে কুয়েতের পুলিশ। তাঁকে রিমান্ডে নিয়ে দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের পরে উঠে আসে কীভাবে বাংলাদেশের এই সংসদ সদস্য মানুষকে প্রতারিত করে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন এবং এই কাজে তাঁকে কুয়েতের প্রভাবশালী সরকারি কর্মকর্তারাও ঘুষ, উপহার ও অন্যান্য সুযোগের বিনিময়ে সহায়তা করেছেন। তিনি এখন কুয়েতের কারাগারেই আছেন।

এরপর গত শনিবার মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক গণমাধ্যম মিডল ইস্ট মনিটরের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মানব ও অর্থ পাচারের অভিযোগে কুয়েতে বাংলাদেশি এমপি পাপুলের গ্রেপ্তারের যেসব বিস্তারিত তথ্য আসতে শুরু করেছে তাতে দেখা যাচ্ছে, শুধু পাপুল একা নন তাঁর এই অপরাধকর্মে পারস্য উপসাগরীয় দেশটিতে নিযুক্ত ঢাকার রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালামও জড়িত থাকতে পারেন।

পাপুলের এসব অবৈধ কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন রাষ্ট্রদূত আবুল কালামের বিরুদ্ধে সতর্কবার্তা জারি করতে বাধ্য হন বলেও দাবি করা হয় প্রতিবেদনে।

এর মধ্যেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ঢাকায় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনার সময় সংসদ সদস্য পাপুলের ব্যাপারে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছিলেন, রাষ্ট্রদূত আবুল কালামের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ তিনি গণমাধ্যমে দেখেছেন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সরকার এ ব্যাপারে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অনুসরণ করে ড. মোমেন বলেন, ‘অভিযোগ পেলে তাঁকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

তবে এ ব্যাপারে এখনো কুয়েত আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ সরকারকে কিছু জানায়নি বলেও জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি জানিয়েছিলেন, কুয়েতের রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালামের চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ চলতি মাসেই শেষ হয়ে যাচ্ছে। এরপর তিনি দেশে ফিরে আসবেন। ড. মোমেন বলেছিলেন, ‘সেখানকার পরবর্তী রাষ্ট্রদূত কে হবেন সেটিও আমরা চূড়ান্ত করে ফেলেছি।’

এর মধ্যে আজ নতুন রাষ্ট্রদূত হিসেবে মেজর জেনারেল মো. শহিদুজ্জামানের নাম ঘোষণা করা হলো।