যশোরে অপহৃত ব্যবসায়ীকে উদ্ধার, ৭ অপহরণকারী গ্রেপ্তার

যশোরের পৌর কাউন্সিলর আলমগীর হোসেন ওরফে হাজি সুমনের বাড়ি থেকে অপহরণ চক্রের সাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। একই সাথে উদ্ধার করে অপহৃত ব্যবসায়ি কহিদুল ইসলামকে (২৮)। উদ্ধারকৃত কহিদুল ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলার কাগমারি গ্রামের জ্বালাল মন্ডলের ছেলে।  আটককৃতরা হচ্ছে শহরের ঘোপ জেল রোডের মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে জাহিদুল ইসলাম (৪৭) সার্কিট হাউজ পাড়ার হোসেন আলী গাজির ছেলে গোলাম রসুল (৩৬) ষষ্ঠীতলা পিটিআই স্কুলের পিছনে শ্রী শ্যাম মন্ডলের ছেলে মানিক মন্ডল (৩১) মুড়লি আমতলী গ্রামের হালিম ফকিরের ছেলে বর্তমানে পোষ্ট অফিস পাড়ার ওয়াদুদ মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া শওকত হোসেন ওরফে আপন (৩০) সদর উপজেলার ফতেপুর গ্রামের ইয়াকুব আলী বিশ্বাসের ছেলে নয়ন (৩৯) শেখহাটি বাবলাতলার মোসলেম আলী ওরফে আব্দুল গনির ছেলে রাব্বি হোসেন ওরফে সাদ্দাম (২৬) পাবনা জেলার ইশ্বরদী থানার পিয়ারিখালি গোরস্থান পাড়া গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদিনের ছেলে নুরইসলাম ওরফে সানি (৩৪)।

রোববার রাতে ওসি মারুফ আহম্মেদের নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের একটি দল শহরের মাইকপট্টিস্থ হাজী সুমনের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এদেরকে আটক করা হয়। এসময় অপহৃত কহিদুল ইসলামকে উদ্ধার করা হয়। জব্দ করা হয় সাড়ে ১৮ হাজার টাকা, চেক, স্ট্যাম্প ও বিভিন্ন মোবাইলের মাদারবোর্ড ও মাদক সেবনের আলামত। সোমবার দুপুরে জেলা ডিবি কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহমেদ।

তিনি বলেন, অপহৃত কহিদুলের ভাই রাশিদুল ইসলামের মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলামের নির্দেশে এই অভিযান চলোনো হয়। অপহরণকারীরা মুক্তিপণ নিতে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে অপহৃত কহিদুলকে নিয়ে পোস্ট অফিস মোড়ে আসলে প্রথমে দুই অপহরণকারী শওকত হোসেন ওরফে আপন ও মানিক মন্ডলকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে হাজী সুমনের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। সেখান থেকে আরও ৫ অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়। উদ্ধার করা হয় অপহৃত কহিদুলকে। এসময় আটক জাহিদুল ইসলামের কাছ থেকে ১৩ হাজার টাকা গোলাম রসুলের কাছ থেকে ৫ শ ৫০ টাকা সানির কাছ থেকে ১ শ টাকা মূল্যের তিনটি নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প নয়নের কাছ থেকে কহিদুলের স্বাক্ষরিত ইসলামি ব্যাংকের একটি চেক রাব্বি হোসেন সাদ্দামের কাছ থেকে মাদক সেবনের সরঞ্জামদি ও এক কেজি ওজনের বিভিন্ন ব্রান্ডের মোবাইলের মাদার বোর্ড জব্দ করা হয়। এঘটনায় অপহৃত কহিদুলের বড় ভাই রাশিদুল ইসলাম বাদি হয়ে কোতয়ালি থানায় মামলা করেন।

উল্লেখ্য হাজী সুমনের বাবা যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক। তার বড় ভাই হেলালুল ইসলাম যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসার। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে যশোরে আলোচনায় আসে হাজী সুমন।