শ্রীপুরে যুবলীগের হাতে ছাত্রলীগ নেতা খুন!

গাজীপুরের শ্রীপুরে ক্রিকেট খেলার বিরোধকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের এক নেতাকে পিটিয়ে খুন করে লাশ আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের পাশের পুকুরে ফেলে দেয় স্থানীয় যুবলীগের এক কর্মী ও তার সহযোগীরা।

বৃহস্পতিবার রাতে শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম- নয়ন শেখ (২৫)। তিনি শ্রীপুরের কাওরাইদ ইউনিয়নের বেলদিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল কাদিরের ছেলে ও কাওরাইদ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী ছিল।

নিহতের পরিবারসহ স্থানীয়রা জানান, শ্রীপুরের কাওরাইদ ইউনিয়নের কাওরাইদ গ্রামের যুবলীগ কর্মী খায়রুল ইসলাম (৩৫) বৃহস্পতিবার দুপুরে তার ছেলে অনুভব মীরসহ (১৪) স্থানীয় কাওরাইদ কে এন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ক্রিকেট খেলতে যায়। সেখানে পাশের বেলদিয়া গ্রামের এক ছেলের সঙ্গে অনুভবের ঝগড়াঝাটি হয়।

এ ঘটনার ব্যাপারে ওই ছেলেসহ অন্যরা ছাত্রলীগ নেতা নয়ন শেখের কাছে অনুভবের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে। পরে নয়ন শেখ বাড়ি থেকে অনুভবকে কাওরাইদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ডেকে এনে শাসন করে ছেড়ে দেয়। খবর পেয়ে অনুভবের বাবা ওই কার্যালয়ে গিয়ে তার ছেলেকে মারধরের কারণ নয়ন শেখের কাছে জানতে চান। এ নিয়ে খায়রুল ইসলাম সঙ্গে নয়ন শেখের বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে নয়ন শেখ চেয়ার দিয়ে খায়রুল ইসলামের মাথায় আঘাত করলে তিনি আহত হন।

এ সময় খায়রুল ইসলামের লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে নয়ন শেখকে ধাওয়া করে। উপায়ান্তর না দেখে নয়ন শেখ আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের পেছন দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় তাকে আটক করে বেধড়ক মারধর করে অন্যরা। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হয় নয়ন শেখ। পরে তার লাশ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের পাশের পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়।

শ্রীপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) ইমতিয়াজ মাহফুজ জানান, নিহতের মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতসহ শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। রাতেই নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হচ্ছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

নিহতের বড় ভাই রতন শেখ জানান, খায়রুল ইসলাম ও তার লোকজন পরিকল্পিতভাবে নয়ন শেখকে হত্যা করেছে। পরে নিহতের লাশ পুকুরে ফেলে দেয়া হয়।