ফরিদপুরে শুরু বুস্টার ডোজ, মজুদ এক লাখ করোনা টিকা

ফরিদপুরে করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধী টিকার বুস্টার ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। জেলার স্বাস্থ্য বিভাগ মঙ্গলবার এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে বলা হয়, বর্তমানে জেলায় বুস্টার ডোজের জন্য পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন মজুদ রয়েছে। করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পর ছয় মাস পেরিয়েছে, এমন ব্যক্তিদের বুস্টার ডোজ দেয়া হচ্ছে। এর জন্য তাদের আলাদাভাবে নিবন্ধনের কোনো প্রয়োজন নেই। কোনো মেসেজের জন্যও তাদের অপেক্ষা করতে হবে না। শুধু পূর্বের টিকাকেন্দ্রে গিয়ে টিকা কার্ডের ফটোকপি দেখালেই বুস্টার ডোজের টিকা তাদের দেয়া হবে।

দেশে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমন শনাক্ত হওয়ার পর করোনা ভ্যাকসিনের বুস্টার ডোজ দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়। ফরিদপুরে গত ২৯ ডিসেম্বর হতে শুরু করা হয়েছে এ কার্যক্রম।

ফরিদপুরের জেলা শহরের তিনটি কেন্দ্র ও জেলা সদরের বাইরে আটটি উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বুস্টার ডোজের টিকা দেয়া হচ্ছে।

জানা গেছে , বর্তমানে ফরিদপুর জেলায় প্রায় লাখের মতো ভ্যাকসিন মজুদ রয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগের হাতে। বুস্টার ডোজের পাশাপাশি জেলার অন্যান্য উপজেলাতে স্কুল কলেজের ১২ হতে ১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদেরও টিকা দেয়া হচ্ছে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরা নির্দিষ্ট দিনে এই টিকা নিচ্ছে। দেশে করোনা ভাইরাসের ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ার প্রেক্ষিতে নির্দিষ্ট বয়সী সকলকে আবশ্যিক টিকা নেয়ার নির্দেশনা জারি হয়েছে।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার জানিয়েছেন, যারা এখনো করোনার টিকা নেয়নি তাদেরকে ঘরের বাইরে ঘোরাফেরা করতে দেয়া হবে না।

গত শনিবার সকালে ফরিদপুরে জেলার আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। এসময় করোনা সংক্রমনরোধে সকলকে অবশ্যই টিকা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক অতুল সরকার করোনা সংক্রমনরোধে সকলের সহযোগিতা চেয়ে বলেন, ‘যদি একজন ব্যক্তি ভ্যাকসিনেশন থেকে বাদ পড়ে যায়, তাহলে তার জন্য শুধু পরিবারের লোকেরাই নয়, গোটা সমাজজের সকলেই হুমকির কবলে পড়ে যাবে।’

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যে যেখানে অবস্থান করবে সেখানে সঠিকভাবে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করার অনুরোধ জানান তিনি।

সভায় জানানো হয়, শুধু বাইরে চলাফেরাই নয়, করোনার টিকা না নিলে কাঙ্ক্ষিত সেবাও মিলবে না। এই ব্যাপারে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়নে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে বলা হয়েছে। সাধারণ মানুষ যাতে মাস্ক পড়তে উৎসাহী হয় এজন্য তাদের মাঝে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালানোরও অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সিভিল সার্জন ডা. মো. ছিদ্দীকুর রহমান জানান , কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশনের ১ম ও ২য় ডোজের পাশাপাশি যাদের অ্যাস্ট্রাজেনেকা বা সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের ২য় ডোজ নেয়ার পর ছয় মাস অতিবাহিত হয়েছে, এমন সকলকে পূর্বের কেন্দ্র হতেই ৩য় ডোজ বা বুস্টার ডোজ দেয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে টিকা গ্রহণের এসএমএস বা মেসেজ না পেলেও টিকা কার্ডের ফটোকপি দেখালেও হবে।

তিনি জানান , ফরিদপুর জেলায় করোনা ভ্যাকসিনেশনের জন্য প্রায় এক লাখ টিকা মজুদ রয়েছে। সবাইকে নিজে নিজ কেন্দ্রে যেয়ে টিকা গ্রহণের অনুরোধ জানান তিনি।

জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানা যায় , ফরিদপুরে এ পর্যন্ত প্রথম ডোজে নয় লাখ ৯২ হাজার পাঁচ শ’ ৮৭ জন ও দ্বিতীয় ডোজে সাত লাখ ৫৬ হাজার আট জনকে করোনার টিকা দেয়া হয়েছে ।

 

শনিবার পর্যন্ত ৩য় ডোজে জেলার বিভিন্ন কেন্দ্রে ৯১ জন বুস্টার ডোজ নিয়েছেন।

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার কারণে সবাইকে সত্বর নিজ নিজ পূর্বের টিকা কেন্দ্রে যেয়ে তৃতীয় ডোজের টিকা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সোমবার পর্যন্ত ফরিদপুরের পিসিআর ল্যাবে ৯৪ হাজার ৪৪৭টি নমুনা পরীক্ষা করে ২১ হাজার আট শ’ ছয়জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। আক্রান্তের হার ছিলো ২৩ দশমিক শূন্য আট ভাগ।