বাবাকে খুন করে সেপটিক ট্যাংকে লাশ, ৭ মাস পর উদ্ধার

খুলনার রূপসায় বাবাকে খুন করে সেপটিক ট্যাংকে লুকিয়ে রাখার সাত মাস পর লাশ উদ্ধার করল পুলিশ। বৃহস্পতিবার নিহতের ছেলে নিয়ামুল ইসলাম তানভির (১৮) ও সহায়তাকারী জুম্মানকে (৪০) গ্রেফতার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘাতক নিয়ামুল নিজে তার বাবাকে হত্যার বিষয় স্বীকার করে।

স্বীকারোক্তিতে নিয়ামুল জানায়, প্রায় সাত মাস আগে রমজান মাসের রাতে এ হত্যার ঘটনা ঘটে। রূপসা উপজেলার আইচগাতী শোলপুর গ্রামে নিয়ামুল তার সহযোগী জুম্মানকে নিয়ে মসলা বাটার শিল দিয়ে মাথায় আঘাত করে বাবা এনামুল হককে (৫০) হত্যা করে। ওই রাতেই লাশ বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের ভেতর ফেলে দেয়।

জানা যায়, গত ২৯ ডিসেম্বর নিয়ামুল ইসলাম তার ছোট ভাই নাঈমকে (১১) মারধর করলে এক পর্যায়ে নাঈম চিৎকার করে তার বাবার হত্যার কথা বলতে থাকে। বিষয়টি এলাকাবাসী শুনতে পেলে নিয়ামুল দিঘলিয়ার একটি গ্রামে আত্মগোপন করে। পরে পুলিশ পলাতক আসামিদের আটক করে এবং এনামুল হকের গলিত লাশ উদ্ধার করে।

ঘটনাটির সত্যতা নিশ্চিত করে রূপসা থানার অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন জানান, এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং গলিত লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হবে।