আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণে নির্বাহী আদেশ দিতে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাহী আদেশ জারি করতে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউস থেকে বাইডেন এ-সংক্রান্ত প্রথম পদক্ষেপের জানান দেবেন।

যুক্তরাষ্ট্রে সহজলভ্য আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে একের পর এক মর্মান্তিক ঘটনা ঘটছে। এমন প্রেক্ষাপটে আগ্নেয়াস্ত্র বিতর্ককে চাঙা না করে প্রেসিডেন্ট বাইডেন নিজের পন্থায় ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্বাহী আদেশে ‘অদৃশ্য’ অস্ত্রসহ বৈধভাবে সহজে সংগ্রহ করা যায়, এমন হালকা আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহ ও ব্যবহারের ওপর কিছুটা নিয়ন্ত্রণ আনা হবে। আগ্নেয়াস্ত্র আইনে পরিবর্তন ছাড়া এ ক্ষেত্রে চূড়ান্ত কোনো সফলতার আশা না করলেও প্রেসিডেন্ট বাইডেন এ নিয়ে বসে থাকতে ইচ্ছুক নন।

আমেরিকার রক্ষণশীলেরা আগ্নেয়াস্ত্র আইনের ব্যাপারে খুবই স্পর্শকাতর। রিপাবলিকান দলের অধিকাংশ আইনপ্রণেতা বলে আসছেন, সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনী অনুযায়ী নাগরিকদের অস্ত্র রাখার অধিকার নিশ্চিত করার ওপর হস্তক্ষেপ নাগরিক স্বাধীনতার ওপর হস্তক্ষেপের শামিল।

সম্প্রতি কলোরাডো ও জর্জিয়ায় সহিংস ঘটনার পর প্রেসিডেন্ট বাইডেন সাধারণ বিচার-বিবেচনা অনুযায়ী দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানান। বাইডেন বলেন, তিনি এ নিয়ে আর একমুহূর্ত সময় নষ্ট করতে ইচ্ছুক নন। সাধারণ পদক্ষেপের মাধ্যমে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণের মধ্য দিয়ে প্রাণহানি কমানোর কথা বলেছেন তিনি।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, একটি পূর্ণাঙ্গ আইন প্রণয়ন ছাড়া আমেরিকার আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। কংগ্রেসকে এ নিয়ে চাপে ফেলার জন্য তিনি কিছু পদক্ষেপ গ্রহণের কথা জানিয়েছেন।

প্রশাসনের বরাত দিয়ে সংবাদে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট তাঁর নির্বাহী আদেশে আগ্নেয়াস্ত্র ক্রয়ের জন্য একটি সর্বজনীন ‘ব্যাকগ্রাউন্ড চেক’ করার ওপর গুরুত্ব দেবেন। মারাত্মক অস্ত্র ক্রয়ের ওপর তিনি কঠিন শর্ত আরোপ করবেন বলেও মনে করা হচ্ছে।

‘গোস্ট গান’ বা অদৃশ্য হালকা অস্ত্রের কোনো সিরিয়াল নম্বর পর্যন্ত থাকে না। নিজের তৈরি করা অস্ত্রেরও এমন নম্বর থাকে না। ফলে কোনো ঘটনা ঘটলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে এসব অস্ত্রের কোনো তথ্য থাকে না বলে দেখা গেছে। অনলাইন থেকে সহজেই অস্ত্রের যন্ত্রাংশ ক্রয় করা যায়। এসব বন্ধের নির্দেশনা প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্বাহী আদেশে থাকতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

বাজার থেকে বৈধ হালকা পিস্তল ক্রয় করে তাকে সহজেই রূপান্তরিত করা যায়। সাম্প্রতিক ঘটনা থেকে দেখা গেছে, ক্রেতা আলাদা যন্ত্রাংশ ক্রয় করে পিস্তলকে আরও প্রাণঘাতী অস্ত্র হিসেবে রূপান্তরিত করেছেন। প্রেসিডেন্ট বাইডেন তাঁর নির্বাহী আদেশে ক্রয় করা অস্ত্রের এমন রূপান্তরের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করতে পারেন।

বন্দুক করদাতাদের ওপর কড়া নজরদারিসহ স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কোনো ব্যক্তিকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করলে তাঁর কাছ থেকে অস্ত্র নিয়ে নেওয়ার মতো নির্দেশনাও দিতে পারেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। বিভিন্ন কমিউনিটিতে বন্দুক সহিংসতার বিরুদ্ধে জনমত গঠনের জন্য বিপুল অর্থ বরাদ্দের ঘোষণাও আসতে পারে। নির্বাচনী প্রচারের সময়ই বাইডেন বন্দুক সহিংসতার বিরুদ্ধে জনমত গঠনের জন্য ৯০০ মিলিয়ন ডলারের বাজেট বরাদ্দের কথা বলেছিলেন।

বন্দুক সহিংসতায় যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবছর হাজারো মানুষের প্রাণহানি ঘটে। অনেকেই মনে করেন, আমেরিকার উদার আগ্নেয়াস্ত্র আইনের পরিবর্তন করা হলে বছরে বহু মানুষের মৃত্যু রোধ করা সম্ভব হবে।

দিন কয়েক আগেই টেক্সাসে একটি বাংলাদেশি পরিবারের ১৯ ও ২২ বছর বয়সী দুই ভাই বৈধ অস্ত্র দিয়েই পরিবারের ৪ জনকে হত্যা করে নিজেরা আত্মহত্যা করেন। আত্মহত্যাকারী ১৯ বছর বয়সী তরুণ তাঁর সুইসাইড নোটে আমেরিকার আগ্নেয়াস্ত্র আইন নিয়ে নিজের হতাশার কথা বলেছেন। তাঁর ২২ বছর বয়সী মানসিকভাবে অস্থির সহোদর কীভাবে সহজে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র কিনেছেন, সে কথাও সুইসাইড নোটে লেখা রয়েছে।

মার্কিন কংগ্রেসে অল্প সংখ্যাগরিষ্ঠতায় ডেমোক্রেটিক দল আগ্নেয়াস্ত্র আইনে পরিবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছে। প্রেসিডেন্ট বাইডেন এ নিয়ে দলের আইনপ্রণেতাদের চাপ দিয়েছেন।

আমেরিকার সংবিধানে মৌলিক অধিকার হিসেবে বলবৎ থাকা এই নাগরিক অধিকারের ওপর কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ নিয়ে রক্ষণশীলরা সব সময় সোচ্চার। আমেরিকার রাজনীতিতে আগ্নেয়াস্ত্র অধিকারের পক্ষে থাকা রাজনীতিকদের প্রভাব অনেক বেশি। সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় এই আইনে পরিবর্তন আনা হয়তো সম্ভব হবে না।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণে তাঁর অ্যাটর্নি জেনারেল মেরিক গারল্যান্ডকে পাশে নিয়ে এ-সংক্রান্ত নির্বাহী নির্দেশনা ঘোষণা দেবেন বলে জানানো হয়েছে। অ্যাটর্নি জেনারেলকে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ ও অস্ত্রের ওপর নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হবে বলে সংবাদে বলা হয়েছে।