আপন জুয়েলার্সের বিরুদ্ধে পাঁচটি মানি লন্ডারিং মামলার অভিযোগপত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক: আপন জুয়েলার্সের বিরুদ্ধে শুল্ক ও কর ফাঁকি দিয়ে চোরাচালানের মাধ্যমে স্বর্ণালংকার মজুতের অভিযোগে করা পাঁচটি মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। রমনা থানায় মানি লন্ডারিং আইনে করা এসব মামলায় ২৮ ফেব্রুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সংশ্লিষ্ট সাধারণ নিবন্ধন (জিআর) শাখায় এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন। গতকাল আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, আপন জুয়েলার্স বিভিন্ন সময় সাড়ে ১৩ মণ সোনা ও পৌনে আট হাজার ডায়মন্ড অলংকার কিনতে গিয়ে ১৯০ কোটি ৭৮ লাখ টাকা পাচার করেছে। এতে কর ফাঁকির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৭ কোটি ৫২ লাখ টাকা। রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এসব অর্থপাচার করা হয়।

২০১৭ সালে আপন জুয়েলার্সের পাঁচটি শাখায় একযোগে অভিযান চালায় কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। অভিযানে আপন জুয়েলার্সের পাঁচটি শাখা থেকে জব্দ করা হয় ৫৩৭ কেজি ৫০০ গ্রাম সোনা ও সাত হাজার ৭৪৩টি ডায়মন্ড অলংকার। ওই বছরের ১২ আগস্ট আপন জুয়েলার্সের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় দুটি, ধানমন্ডি থানায় একটি, রমনা থানায় একটি ও উত্তরা পূর্ব থানায় একটি মামলা করে কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

আপন জুয়েলার্স অলংকার আমদানির বিপরীতে বৈধ কোনো কাগজ দেখাতে পারেনি। অর্থাৎ শুল্ক গোয়েন্দা বলছে, অর্থপাচার করে চোরাচালানের মাধ্যমে এসব অলংকার দেশে আনা হয়েছে। আর এনবিআরে দেয়া আয়কর নথিতে তথ্য গোপন করে দেয়া হয়েছে কর ফাঁকি। কাস্টমস গোয়েন্দার তদন্তে আপন জুয়েলার্সের মালিক তিন ভাই আজাদ আহমেদ, গুলজার আহমেদ ও দিলদার আহমেদকে দায়ী করা হয়েছে।

আপন জুয়েলার্সের গুলশানে সুবাস্তু স্কয়ার শোরুমের মামলায় আসামি করা হয় গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদকে। সেখান থেকে জব্দ করা হয় ২০৩ কেজি সোনা ও দুই হাজার ৮৫৯টি ডায়মন্ডের অলংকার, যেখানে জব্দ করা অলংকারের বিপরীতে পাচার করা হয়েছে ৭৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা এবং কর ফাঁকি দেয়া হয়েছে ১১ কোটি ২৭ লাখ টাকা।

মৌচাক মার্কেট শোরুমের রমনা মডেল থানার মামলায় আসামি করা হয় দিলদার আহমেদকে। শোরুমটি থেকে জব্দ করা হয় ৫৪ কেজি ২০০ গ্রাম সোনা ও এক হাজার ৫৮০টি ডায়মন্ড অলংকার, যার বিপরীতে পাচার করা হয়েছে ১৯ কোটি ৬০ লাখ টাকা এবং কর ফাঁকি দেয়া হয়েছে তিন কোটি টাকা।

এনআর কমপ্লেক্স শোরুমের উত্তরা পূর্ব থানার মামলায়ও আসামি করা হয় দিলদার আহমেদকে। শোরুমটি থেকে জব্দ করা হয় ৮৯ কেজি সোনা ও এক হাজার ৪১০টি ডায়মন্ডের অলংকার, যার বিপরীতে পাচার করা হয়েছে ৩০ কোটি ৯৯ লাখ টাকা এবং কর ফাঁকি দেয়া হয়েছে চার কোটি ২২ লাখ টাকা।

ডিএনসিসি মার্কেট শোরুমের গুলশান থানার মামলায় আসামি করা হয় আজাদ আহমেদকে। শোরুমটি থেকে জব্দ করা হয় ৯০ কেজি ৩০০ গ্রাম সোনা ও ৩৩৮টি ডায়মন্ডের অলংকার, যার বিপরীতে বিদেশে পাচার করা হয়েছে ৩১ কোটি সাত লাখ টাকা। আর কর ফাঁকি দেয়া হয়েছে চার কোটি ছয় লাখ টাকা।

এছাড়া সীমান্ত স্কয়ার শোরুমের ধানমন্ডি থানার মামলায় আসামি করা হয় দিলদার আহমেদকে। শোরুমটি থেকে জব্দ করা হয় ১০১ কেজি সোনা ও এক হাজার ৫৫৭টি ডায়মন্ডের অলংকার, যার বিপরীতে পাচার করা হয়েছে ৩৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা এবং কর ফাঁকি দেয়া হয়েছে চার কোটি ৯৭ লাখ টাকা। মোট ১৯০ কোটি ৭৮ লাখ টাকা পাচার করা হয়েছে আর কর ফাঁকি দেয়া হয়েছে ২৭ কোটি ৫২ লাখ টাকা।

২০১৭ সালের ২৮ মার্চ দ্য রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের পার্টিতে আমন্ত্রণ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাত আহমেদ ও তার বন্ধু নাঈম আশরাফ। ৬ মে রাতে ভুক্তভোগীদের একজন বনানী থানায় আসামিদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। এর পরই শুল্ক গোয়েন্দা আপন জুয়েলার্সে অবৈধ অলংকার জব্দ করতে অভিযানে নামে।