আবারো তাফসির আউয়ালকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদেশে অর্থ পাচারের অভিযোগে বিএনপি নেতা আবদুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাফসির আউয়ালকে তৃতীয়বারের মতো জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুদক। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দুদকের সেগুনবাগিচা কার্যালয়ে সংস্থাটির পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে একটি দল তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

জানা যায়, নিউ ইয়র্ক ও লন্ডনে একাধিক ব্যাংক হিসাব খুলে নিজের মালিকানাধীন কোম্পানির ‘কোটি কোটি টাকা লেনদেনসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে তাফসিরকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুদক। এর আগে গত ৩১ অগাস্ট তাকে কমিশনে ডেকে নিয়ে প্রায় চার ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

ওই দিন জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাফসির জানায়, আমি দেশে ছিলাম না, লন্ডনে ছিলাম। দুদকের নোটিস পেয়ে চলে এসেছি। উনারা আমাকে অনেক বিষয়ে প্রশ্ন করেছেন, আমি উত্তরও দিয়েছি। দুদক দুদকের কাজ করে যাচ্ছে। এতে আমার কোনো অসুবিধা নেই, আপত্তিও নেই।

লন্ডন ও যুক্তরাষ্ট্রে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট আছে কিনা- জানতে চাইলে তাফসির সেদিন জানান, দুদকের কাছে কে অভিযোগটা দিয়েছে, বা কী কারণে অভিযোগটা এসেছে- এটা নিয়ে হয়তোবা আমার একটু অসুবিধা আছে। আমার একটা পারিবারিক ঝামেলা চলছে, এটি নিয়ে আদালতেও আছি। মনে হয় এটি (অভিযোগ) ব্যক্তিগত কারণে করেছে, সেটা হয়তো দুদক জানে না’।

এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আউয়াল মিন্টুর দ্বিতীয় ছেলে তাফসির যুক্তরাজ্যে পড়াশুনা করেন। তিনি বিয়ে করেছেন প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভীর মেয়েকে। সম্প্রতি তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ ঘটেছে বলে পারিবারিক সূত্র জানায়। তাদের একটি মেয়ে রয়েছে। তার অভিভাবকত্ব নিয়ে মা-বাবা দুজনে লন্ডনে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন।

তাফসিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে এর আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিআইএফআইউ থেকে বেশ কিছু রেকর্ডপত্র চেয়ে চিঠি দিয়েছিলেন দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা।

ওই চিঠিতে আব্দুল আউয়াল মিন্টু এবং তার সন্তানদের নামে বিদেশি কোম্পানি এনএফএম এনার্জির নামে যুক্তরাজ্যের একটি ব্যাংকের লন্ডন শাখা এবং যুক্তরাষ্ট্রে দুটি ব্যাংকের নিউ ইয়র্ক ও পিটসবার্গ শাখার কয়েকটি অ্যাকাউন্টের তথ্য, থাইল্যান্ডে একটি বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট নিবন্ধন এবং লেনদেন সম্পর্কিত তথ্য এবং বারমুডায় নিবন্ধিত এনএফএম এনার্জি লিমিটেড এর (যার শেয়ারধারী হিসেবে আব্দুল আউয়াল মিন্টু ও তার স্ত্রী নাসরিন ফাতেমা আউয়ালের নাম রয়েছে) তথ্য চাওয়া হয়।

এছাড়া সিঙ্গাপুরে যৌথ মালিকানায় নিবন্ধিত এনএফএম এনার্জিতে বিনিয়োগ সংক্রান্ত তথ্যও চাওয়া হয় বিআইএফইউতে পাঠানো চিঠিতে। এর মধ্যে কিছু নথিপত্র ইতোমধ্যে দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তার দপ্তরে জমা হয়েছে, বলে জানা গেছে।