ইউএনও ওয়াহিদা ‘শঙ্কামুক্ত’

নিজস্ব প্রতিবেদক: দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম এখন শঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তবে হাসপাতালের হাই ডিপেন্ডডেসি ইউনিটে পর্যবেক্ষণে থাকা ওয়াহিদাকে কেবিনে স্থানান্তরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি। এর আগে ইউএনও ওয়াহিদার অস্ত্রোপচারস্থল মুখ ও কপালের সেলাই কাটা হয়। তিনি এখন ঢাকায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসাধীন।

ইউএনও ওয়াহিদার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের প্রধান জাহেদ হোসেন আজ শনিবার সকালে জানান, ‘অবস্থা আগের তুলনায় কিছুটা ভালো। অবশ হয়ে যাওয়া ডান হাতও তিনি এখন নাড়াতে পারছেন। সলিড খাবার খেতে পারছেন তিনি।’

উল্লেখ্য, গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে ঘোড়াঘাটের ইউএনওর সরকারি বাসভবনে ঢুকে ওয়াহিদা খানম ও তার বাবার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। গুরুতর অবস্থায় তাকে প্রথমে রংপুরের একটি হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়। পরদিন দুপুরে তাকে বিমানবাহিনীর একটি হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হয়। ঐ দিন রাতেই জাতীয় নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে সফলভাবে তার অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়।

এ ঘটনায় ঘোড়াঘাট থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন ওয়াহিদার ভাই শেখ ফরিদ। সেখানে আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়।

ঐ মামলার ছায়া তদন্ত করতে গিয়ে দিনাজপুরের হাকিমপুর থানাধীন বাংলা হিলি এলাকা থেকে আসাদুল নামে একজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পরে র‌্যাবের অভিযানে নবীরুল ও সান্টু নামে আরও দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়।