সবজি ও পেঁয়াজের বাজার চড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: নতুন করে বাজারে পেঁয়াজের ঝাঁজ বাড়েনি। তবে সরকারের পক্ষ থেকে পেঁয়াজ আমদানির ঘোষণা দেওয়া হলেও কমেনি পেঁয়াজের দাম। গেল সপ্তাহের বাড়তি দামেই বাজারে এখনও পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। সবজির দামও কয়েক মাস ধরেই বাড়তি রয়েছে। নতুন করে কোন সবজির দামও কমেনি। আর কাঁচামরিচের কেজি বাজারে এখন প্রায় আড়াইশ টাকা ছুঁইছুঁই। চালের দাম আগের মতোই স্থির রয়েছে। কিছুটা বেড়েছে ব্রয়লার মুরগির দাম।শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর ) কারওয়ানবাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে এমন তথ্য জানা গেছে।

সবজির মধ্যে কারওয়ানবাজারে বেগুন ৭০ টাকা , ঝিঙ্গা ৬০ টাকা, বরবটি ৭০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, টমেটো ১০০ টাকা ও গাজর ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এই বাজারের বিক্রেতা রবিন সারাবাংলাকে বলেন, সবজির দাম আগের মতোই রয়েছে। নতুন করে দাম বাড়েনি বা কমেনি।

মহাখালীর বউবাজারে সবজির মধ্যে পেঁপে ৪০ টাকা, ঢেড়শ ৬০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, বেগুন ৮০ থেকে ১২০ টাকা ও করলা ৮০ টাকা, টমেটো ১২০ কেজিতে বিক্রি হতে দেখা গেছে। আর এই বাজারে শসা ৪০ থেকে ৮০ টাকা ও কাঁচামরিচ ২০০ টাকা থেকে ২৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর লেবু বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকা হালিতে। এছাড়া দেশি পেঁয়াজ ৬০ টাকা, রসুন ১০০ থেকে ১২০ টাকা ও আদা ২০০ থেকে ২৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

এই বাজারের সবজি বিক্রেতা সেলিম বলেন, গেল কয়েক সপ্তাহ ধরেই সবজির দাম আগের মতোই রয়েছে। এছাড়া বাজারে চালের দাম আগের মতোই স্থির রয়েছে। বর্তমানে খুচরা বাজারে মিনিকেট ৫৫ টাকা, আটাশ ৪৮ টাকা, নাজিরশাইল ৬৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর পাইকারি বাজারে প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) মিনিকেট চালের দাম পড়ছে ২৬০০ টাকা, আটাশ ২২০০টাকা ও নাজিরশাইল ২৮০০ থেকে ২৯০০ টাকা।

পেঁয়াজের বাজারে আবারও অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। বাজারে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ থাকা সত্ত্বেও এই পণ্যটির দাম হু হু করে বাড়ছে। শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর কাওরান বাজার, মগবাজার, মানিক নগর বাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

পেঁয়াজের এই মূল্যবৃদ্ধির পেছনে ভারতের বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়াকে দায়ী করছেন ব্যবসায়ীরা। খুচরা পেঁয়াজ বিক্রেতারা জানিয়েছেন, এক মাস আগে প্রতিকেজি পেঁয়াজের দাম ছিল ৩০ টাকা। এখন সেই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা কেজি। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে কেজিপ্রতি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৪০ টাকা। আর একই সময়ে প্রতিকেজি আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৩০ টাকা। অর্থাৎ এক মাস আগের আমদানি করা যে পেঁয়াজের দাম ছিল ২৫ টাকা কেজি, সেই পেঁয়াজ এখন বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকারও বেশি দরে।

এদিকে সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবিও বলছে, গত এক মাসে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। সংস্থাটির হিসাবে গত এক মাসে দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৬০ শতাংশ। আর আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৭২ শতাংশ।

করোনার কারণে অনেকেরই আয় কমে গেছে। এই সময়ে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধিকে বাড়তি চাপ হিসেবে দেখছেন সাধারণ মানুষ।রাজধানীর কমলাপুরের বাসিন্দা মিজানুর রহমান বলেন,  পেঁয়াজের বাজার দেখার বোধ হয় কেউ নেই। কোরবানির সময়ও ৩০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনেছি। এখন সেই পেঁয়াজ ৬৬ টাকা কেজি দরে কিনতে হলো। তিনি বলেন, ‘গত বছরের মতো আবারও পেঁয়াজের দাম বেড়ে আড়াইশ’-তিনশ’ টাকা যাতে না হয়, সে ব্যাপারে সরকারের উদ্যোগ থাকা উচিত।

প্রসঙ্গত, গত বছর এই সেপ্টেম্বর মাস থেকেই ৩০ টাকা কেজি দরের পেঁয়াজের দাম কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়ে তিনশো টাকা ছাড়িয়ে যায়।রাজধানীর মানিক নগরের সবজি বিক্রেতা আবুল কাসেম বলেন,  মোকামে এখন পেঁয়াজের দাম বেশি। সেখান থেকে ৬০ টাকা দরে এনে ৬৫ টাকা দরে খুচরা বিক্রি করছেন তিনি। একই বাজারের ব্যবসায়ী ইউসুফ আলী বলেন, ‘ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়ার কারণে বাংলাদেশেও পেঁয়াজের দাম এখন বাড়তি।

এদিকে বাজারে পেঁয়াজ ছাড়াও সব ধরনের সবজি, আলু, ব্রয়লার মুরগি, আদা ও দারুচিনির দামও কিছুটা বাড়তি। গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে ৩০ টাকা। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৪৫ টাকা— যা গত সপ্তাহে ছিল ১২০-১২৫ টাকা। তার আগের সপ্তাহে ছিল ১১০-১১৫ টাকার মধ্যে। এছাড়া বেড়েছে আলু দামও। গত বছরের ২০ টাকা কেজি আলু এখন বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কেজি দরে। তবে দাম কমার তালিকাতেয় রয়েছে ৫টি পণ্য। এগুলো হলো— আটা, ময়দা, ছোট দানার মশুর ডাল, সয়াবিন তেল ও শুকনো মরিচ।