পাপিয়া-সুমনের অস্ত্র মামলায় যুক্তিতর্ক ২৪ সেপ্টেম্বর

নিজস্ব প্রতিবেদক: যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন অস্ত্র আইনের মামলায় নিজেদের নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার চেয়েছেন।বুধবার ঢাকা মহানগর এক নম্বর বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে আত্মপক্ষ শুনানিতে নিজেদেরকে নির্দোষ দাবি করেন তারা।

কোনো সাফাই সাক্ষীও হাজির করবেন না বলে তারা আদালতকে জানান।এদিন বিচারকের পক্ষে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী কেএম সাজ্জাদুল হক শিহাব ও তাপস পাল আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ও ১২ জন সাক্ষীর জবানবন্দী পড়ে শোনান। পরে বিচারক আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের তারিখ ধার্য করেন।

পাপিয়ার আইনজীবী শাখাওয়াত উল্যাহ ভূঞা জানান, নির্দোষ দাবি করা ছাড়া বিচারকের কাছে আর কোনো আবেদন তাদের ছিল না।মঙ্গলবার এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। ছয় কার্যদিবসে মোট ১৪ জন সাক্ষীর মধ্যে ১২ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়।গত ২৯ জুন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব-১ এর এসআই আরিফুজ্জামান ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন।গত ১৮ অগাস্ট দুই আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র আমলে নেয়া হয়।

এরপর ২৩ অগাস্ট একই বিচারক আসামিদের অব্যাহতির আবেদন নাকচ করে অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে বিচার শুরুর আদেশ দেন।গত ২২ ফেব্রুয়ারি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দুই সহযোগীসহ পাপিয়া ও সুমনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পাপিয়া ও তার স্বামী সুমনকে গত ২২ ফেব্রুয়ারি ঢাকার শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সে সময় তাদের কাছ থেকে সাতটি পাসপোর্ট, দুই লাখ ১২ হাজার ২৭০ টাকা, ২৫ হাজার ৬০০ টাকার জাল নোট, ১১ হাজার ৪৮১ ডলার, শ্রীলঙ্কা ও ভারতের কিছু মুদ্রা এবং দুটি ডেবিট কার্ড জব্দ করা হয়।পরে পাপিয়ার ফার্মগেইটের ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে সেখান থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন, ২০টি গুলি, পাঁচ বোতল বিদেশি মদ, ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা এবং বিভিন্ন ব্যাংকের ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড উদ্ধারের কথা জানায় র‌্যাব। অভিযান চালানো হয় পাপিয়ার নরসিংদীর বাড়িতেও ।

র‌্যাবের পক্ষ থেকে সে সময় বলা হয়, পাপিয়া গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেল ভাড়া নিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে যে আয় করতেন, তা দিয়ে হোটেলে বিল দিতেন কোটির টাকার উপরে।গ্রেপ্তারের পর পাপিয়া ও তার স্বামীর বিরুদ্ধে শেরেবাংলা নগর থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে দুটি মামলা করে র‌্যাব। বিমানবন্দর থানায়ও তাদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইন-১৯৭৪ এর অধীনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। আর মুদ্রা পাচার প্রতিরোধ আইনে সিআইডি আরেকটি মামলা করে। এরপর দুদকও পাপিয়ার অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধানে নামে।