খাসোগি হত্যা : অভিযুক্তদের সাজা বদলে দিলো সৌদি আদালত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যাকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ড দেয়া পাঁচ ব্যক্তির সাজা পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে সৌদি আরবের একটি আদালত। ২০১৮ সালের ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পাঁচ ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ডসহ মোট আটজনকে বিভিন্ন দেয়াদের সাজা দেয়া হয়েছিল।

তবে কৌঁসুলিরা বলছেন, সাংবাদিক খাসোগির পরিবার তাদের ক্ষমা করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় মৃত্যুদণ্ড পরিবর্তন করে ২০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। তবে জামাল খাসোগির বান্ধবী এই সাজাকে ‘বিচারের নামে তামাশা’ বলে বর্ণনা করেছেন।

সৌদি সরকারের একজন সমালোচক জামাল খাসোগিকে ২০১৮ সালে তুরস্কের ইস্তানবুলের কনস্যুলেটে হত্যা করে একদল সৌদি এজেন্ট।

সৌদি আরবের সরকার বলেছে, একটি ‘বেপরোয়া অভিযানে’ ওই সাংবাদিক খুন হন। পরের বছর ১১ জন ব্যক্তিকে বিচারের জন্য অভিযুক্ত করে সৌদি কৌঁসুলিরা, যদিও তাদের নাম প্রকাশ করা হয়নি।

তবে সেই বিচার প্রক্রিয়াকে সেই সময় ‘ন্যায়বিচার বিরোধী’ বর্ণনা করে প্রত্যাখ্যান করেছিলেন জাতিসঙ্ঘের স্পেশাল র‍্যাপোটিয়ার অ্যাগনেস ক্যালামার্ড।

তিনি বলেছিলেন, খাসোগিকে ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, সুপরিকল্পিত খুন’, যার জন্য সৌদি আরব রাষ্ট্র দায়ী।

মিজ ক্যালামার্ড বলেছিলেন, ওই হত্যাকাণ্ডে সৌদি সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা দায়ী, যাদের মধ্যে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানও রয়েছেন।

তবে এই ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থাকার অভিযোগ নাকচ করেছেন যুবরাজ মোহাম্মদ। তবে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে খাসোগি হত্যার অভিযোগে অনুপস্থিতিতেই যুবরাজের সাবেক দুই সহকারীকে অভিযুক্ত করেছে তুরস্ক। ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তুরস্কে আরো ১৮ জনের বিচার চলছে।

যেভাবে জামাল খাসোগি নিহত হন

৫৯ বছর বয়সী সাংবাদিক জামাল খাসোগি ২০১৭ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছা নির্বাসনে ছিলেন।

তাকে ২০১৮ সালের ২ অক্টোবর সর্বশেষ তুরস্কের ইস্তানবুলে সৌদি কনস্যুলেটে ঢুকতে দেয়া যায়। তিনি সেখানে গিয়েছিলেন তার তুর্কী বান্ধবীকে বিয়ে করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জোগাড় করতে।

বলা হয়, সেখানে খাসোগজিকে হত্যার সময়ের কথাবার্তা গোপনে রেকর্ড করেছিল তুর্কী গোয়েন্দা সংস্থা। সেই রেকর্ডিং শুনে জাতিসঙ্ঘ কর্মকর্তা অ্যাগনেস ক্যালামার্ড মন্তব্য করেছিলেন, খাসোগিকে সেখানে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

তবে সৌদি আরবের সরকারি কৌঁসুলিরা দাবি করেছেন যে, এই হত্যাকাণ্ড পূর্বপরিকল্পিত ছিল না।

সৌদি আরবের ডেপুটি পাবলিক প্রসিকিউটর শালান শালান গত বছরের নভেম্বরে বলেছিলেন, এই হত্যার নির্দেশ এসেছিল জামাল খাসোগির সাথে আলোচনার জন্য ইস্তাম্বুলে পাঠানো একটি দলের নেতার কাছ থেকে। এই দলটিকে সেখানে পাঠান সৌদি আরবের গোয়েন্দা সংস্থার উপ-প্রধান। খাসোগিকে বুঝিয়ে-শুনিয়ে বা দরকার হলে জোর করে দেশে ফিরিয়ে আনতে বলা হয়েছিল এই দলটিকে।

তদন্তকারীরা জানিয়েছিলেন, কনস্যুলেটের মধ্যে ধস্তাধস্তির পর খাসোগির শরীরে ইনজেকশন দিয়ে বেশি মাত্রায় ড্রাগ প্রয়োগ করা হয়, এর ফলেই তিনি মারা যান। এরপর তার শরীর খণ্ড-বিখন্ড করে স্থানীয় এক ‘দালালের’ হাতে তুলে দেয়া হয়। এখনো পর্যন্ত জামাল খাসোগির লাশ খুঁজে পাওয়া যায়নি।

তবে তুরস্কের কৌঁসুলিরা সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, কনস্যুলেটে প্রবেশের প্রায় সাথে সাথেই জামাল খাসোগিকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয় এবং তার লাশ ধ্বংস করে ফেলা হয়।

সৌদি আরবে এ ঘটনায় মোট ১৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

গত জানুয়ারিতে এই ঘটনায় রিয়াদের এক ফৌজদারি আদালতে ১১ ব্যক্তির বিচার শুরু হয়। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে এদের মধ্যে হত্যা করা এবং হত্যায় সরাসরি অংশ নেয়ার অভিযোগে পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয় সৌদি আরবের একটি আদালত। ‘হত্যার তথ্য গোপন এবং আইন ভঙ্গের অভিযোগে’ অন্যদের ২৪ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড দেয়া হয়।

তিনজন ব্যক্তির দোষ প্রমাণিত হয়নি, যাদের মধ্যে রয়েছেন সৌদি আরবের গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক উপ-প্রধান আহমেদ আসিরি।

যুবরাজ মোহাম্মদের ঘনিষ্ঠ একজন সহযোগী সাউদ আল-কাহতানির বিরুদ্ধেও তদন্ত করা হয়। কিন্তু তার অপরাধ খুঁজে পাওয়া যায়নি।

সাজা কেন পরিবর্তন করা হলো?

গত মে মাসে, জামাল খাসোগির ছেলে সালাহ মোহাম্মদ ঘোষণা করেন যে, তার বাবাকে যারা হত্যা করেছেন, তাদের তিনি তিনি এবং তার ভাই ক্ষমা করে দিয়েছেন। তারা মেনে নিয়েছেন যে, ওই হত্যাকাণ্ড পূর্বপরিকল্পিত ছিল না।

সোমবার সৌদি আরবের সরকারি কৌঁসুলিরা জানান, রিয়াদের আদালত মৃত্যুদণ্ড পাওয়া পাঁচ ব্যক্তিকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন। বাকি তিনজনকে ১০ বছর করে সাজা দেয়া হয়েছে।

অভিযুক্তদের ক্ষেত্রে এই সাজাই চূড়ান্ত। এর মাধ্যমে সৌদি আরবে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার কার্যক্রমও শেষ হলো।

তবে জামাল খাসোগজির বান্ধবী হেতিস চেঙ্গিস একটি বিবৃতিতে বলছেন, সৌদি আরবে যে রায় দেয়া হলো, সেটার মাধ্যমে আবারো বিচার নিয়ে তামাশা করা হলো।

মিজ ক্যালামার্ড বলেছেন, সাজা হলেও যা ঘটেছে, তা মুছে যাবে না।

”বিচারের নামে প্রহসনের আরেকটি ঘটনার আয়োজন করেছে সৌদি কৌঁসুলিরা। কিন্তু এই সাজার কোনো আইনি বা নৈতিক গ্রহণযোগ্যতা নেই। এমন একটি প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে এটা হয়েছে, যা ন্যায্য বা স্বচ্ছ নয়।” তিনি একটি টুইটে বলেছেন।

এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য আবারো আহবান জানিয়েছেন মিজ ক্যালামার্ড।

সূত্র : বিবিসি