টাঙ্গাইলে বন্যায় ৭৮৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক: এবছর টাঙ্গাইলে কয়েক দফা বন্যায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। জেলার ৭৮৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন ও মাঠ ধ্বস এবং আসবাব পত্র নষ্ট হয়েছে। আর্থিক মূল্যে এই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১৩ কোটি ৪১ লাখ ৩১ হাজার টাকা। এ ছাড়াও জেলার একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত দোতলা ভবন যমুনা নদীতে বিলীন হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরে পাঠদানে ভোগান্তি এড়াতে দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংস্কার করার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষক ও অভিভাবকরা।

শিক্ষা বিভাগ সূত্রে জানাগেছে, সাম্প্রতিক বন্যায় জেলার ১২টি উপজেলার মধ্যে ১০ উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা ও কলেজে নানান ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচশ’ ৬৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আট কোটি ৩৯ লাখ ৩১ হাজার টাকা, একশ’ ৪২ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দুই কোটি ৪৭ লাখ ২৫ হাজার টাকা, ৬৮টি মাদ্রাসায় এক কোটি ৪৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ও ১২ টি কলেজের ৩৪ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এছাড়া যমুনা নদীর ভাঙ্গনে বিলীন হয়েছে নাগরপুর উপজেলার ছলিমাবাদ ইউনিয়নের পাইকশা মাইঝাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত একটি দোতলা ভবন। এতে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ এক কোটি টাকার বেশি।

করোনা পরিস্থিতিতে বন্ধ রয়েছে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে বন্যায় যে ক্ষতি হয়েছে তা সংস্কার না করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হলে শিক্ষার্থীদের পাঠদানে সমস্যায় পড়তে হবে বলে মনে করেন শিক্ষক ও অভিভাবনকরা।

তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী রিফাত মিয়া জানান, বিদ্যালয় ভবন ভেঙ্গে যাওয়ায় তাদের ক্লাশ করতে খুবই কষ্ট হবে। তাই দ্রুত নতুন ক্লাশ রুমের দাবি এই ক্ষুদে শিক্ষার্থীর।

পাইকশা মাইঝাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. আতিকুর রহমান জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় বিদ্যালয় বন্ধ, তাই আপাতত কোন সমস্যা হচ্ছে না। বিদ্যালয় খোলার পর দোতলা ভবনের শিক্ষার্থীদের টিনশেড ঘরে ক্লাশ নিতে হবে। গাদাগাদি করে শিক্ষার্থী বসলে ক্লাশ নিতে খুব সমস্যা হবে। তাই আরেকটি নতুন ভবনের দাবি জানান তিনি।

পাইকশা মাইঝাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ারা খানম জানান, গত বছর বন্যায় এ এলাকায় তীব্র ভাঙন দেখা দেয়। সে সময় যদি ভাঙন রোধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হতো তাহলে আজ তাদের বিদ্যালয়টি যমুনায় বিলীন হয়ে যেত না। শিক্ষার্থীদের ঝড়ে পড়া রোধে নতুন ভবনের দাবি জানান তিনি।

সলিমাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট দাউদুল ইসলাম দাউদ জানান, গত বছর পাইকশা মাইঝাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায় ভাঙন পরিদর্শনে গিয়েছিলেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ও স্থানীয় এমপি আহসানুল ইসলাম টিটু। তিনি ভাঙন রোধে আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু তা বাস্তবায়ন হয়নি।

জেলা প্রাথমিক প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আব্দুল আজিজ জানান, ক্ষতিগ্রস্ত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তালিকা করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়গুলো দ্রুত সংস্কার করে পাঠদান দানের ব্যবস্থা করা হবে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা লায়লা খানম জানান, ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা করে ঢাকা শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর বরাবর পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পেলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো সংস্কার করা হবে।