বিএনপির ভাবমূর্তি নষ্ট করতে গ্রেনেড হামলা : রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক: ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা তৎকালীন বিএনপি সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে আওয়ামী লীগের পরিকল্পিত বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ শনিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় এবং সদ্যপ্রয়াত বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে এ কথা বলেন রিজভী। জাতীয়তাবাদী মৎস্যজীবী দল এই দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে।

এ সময় রুহুল কবির রিজভী আরো বলেন, ‘বারবার এই হামলার দায় বিএনপির ওপর চাপানোর চেষ্টা চলছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বলছেন, তাঁকে মেরে ফেলার টার্গেটেই গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল। কিন্তু তিনি টার্গেটে থাকলে এলোপাতাড়ি গ্রেনেড ফুটল কেন? উনি টার্গেটে থাকলে হামলার সময় সেদিন নির্বিঘ্নে গাড়িতে উঠে গেলেন কীভাবে?’

রিজভী আরো বলেন, “গতকাল প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘আমাকে মেরে ফেলার অনেকবারই চেষ্টা করা হয়েছে। একুশে আগস্ট হচ্ছে একটা বিরাট পরিকল্পনা, ভয়ংকর আক্রমণ। এর আগেও আমাকে অনেকবার আক্রমণ করা হয়েছে।’ প্রধানমন্ত্রী একটু আধ্যাত্মিকভাবে বিষয়টা বলতে চেয়েছেন। সে সময় যদি এই হামলা সরকার পরিকল্পিত বিষয় থাকত, তাহলে একজনকেই টার্গেট করত। এলোপাতাড়ি চারদিকে গ্রেনেড ফুটেছে। উনি (শেখ হাসিনা) কিন্তু সেদিন নিরাপদে গাড়িতে উঠে গেলেন। এই যে, কারণ যে একটা আছে, এটি ছিল অন্যতম কারণ। এ থেকেই স্পষ্ট হয়, এই হামলা ছিল আওয়ামী লীগেরই পরিকল্পিত চক্রান্ত।”

বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, ‘২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনা ছিল তৎকালীন বিএনপি সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করা এবং ছলে-বলে-কৌশলে ক্ষমতায় এসে এবং বিএনপি নেতাদের বিপর্যস্ত করে অভিযুক্ত করা। বড় ধরনের দেশীয় এবং বিদেশি আওয়ামী চক্রান্ত-ষড়যন্ত্রের ফল হচ্ছে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা। এবং তারপর এসব বিচারের প্রক্রিয়া। সবাই দেখছে, কেমন বিচার প্রক্রিয়া চলছে। সই নেই, স্বাক্ষর নেই, কোনো কিছুই নেই। তারপরও বিএনপির চেয়ারপারসন দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে কারাগারে রাখা হয়েছিল।’

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘আমরা এমন একটি অবিচারের রাজ্যে বাস করছি, এখানে চলছে ভয়ংকর অবিচার। ন্যায়বিচার শুধু নিরুদ্দেশ নয়, ন্যায়বিচারের অর্থ কী, এটা আগামী দিনের ছাত্ররা গবেষণা করার সুযোগ পাবে না। কারণ, দেশে চলছে কর্তৃত্ববাদী শাসন, একদলীয় শাসন। অর্থাৎ, সরকার থেকে যা বলা হবে, সেভাবেই ইতিহাস রচনা করা হবে, সেভাবেই গবেষণা হবে, সেভাবেই লেখাপড়া করতে হবে। সরকারের বিধিনিষেধের মধ্যে গবেষণা করারও সুযোগ থাকে না। এটাকেই বলে দুঃশাসন।’

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘২১ আগস্ট বোমা হামলা নিয়ে মিথ্যাচার অল্পস্বল্প নয়। সরকারদলীয় নেতাকর্মীরা কোরাস গাইছেন। গানের মধ্যে যেমন কোরাস গায়, সেভাবে কোরাস গাইছেন প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে অন্যান্য এমপি-মন্ত্রী। আমরা প্রথম থেকেই দেখে আসছি, এই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা নিয়ে বর্তমান সরকার, অর্থাৎ সেই সময়ের বিরোধীদলীয় নেতা, তখন থেকেই কিন্তু ডাইভার্ট করার চেষ্টা করছে। আসল ঘটনাকে ঢেকে ফেলার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

রিজভী আরো বলেন, ‘শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়ে একটা ঘটনা ঘটিয়ে তৎকালীন বিএনপি সরকারকে ব্লেম দেওয়াই ছিল আওয়ামী ষড়যন্ত্রের অংশ। এটা অত্যন্ত সুস্পষ্ট যে, বর্তমান সরকার সে সময়ের বিরোধীদলকে এই ব্লেম দেওয়ার জন্যই পরিকল্পিত ঘটনা ঘটিয়েছে এবং এর কারণ হচ্ছে, বিএনপি সরকারকে দেশে-বিদেশে অভিযুক্ত করা। সেদিন বোমা হামলার পর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বিচলিত হয়েছিলেন। তিনি দৌড়ে সিএমএইচে আইভি রহমানসহ আরো যারা আহত হয়েছিলেন, তাঁদের দেখতে গিয়েছিলেন, খোঁজখবর নিয়েছিলেন। সেখান থেকে দৌড়ে এসেছিলেন সুধা সদনে। কিন্তু সেদিন তাঁকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। কেন ঢুকতে দিল না আপনার ছাত্রলীগ-যুবলীগ। শুধু ঢুকতে দেয়নি তা না, এমনকি প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর আক্রমণ করেছে, তাহলে এই কারণগুলো কী?

রিজভী আরো বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে আমি প্রশ্ন করছি, এই কারণগুলো কী ছিল? আপনারা এটা করতে দেননি কেন? বিদেশ থেকে তদন্ত করার জন্য টিমও নিয়ে আসা হয়েছিল, কিন্তু সেই সময় তৎকালীন বিরোধীদল আওয়ামী লীগ কোনো সহযোগিতা করেনি। কারণগুলো এক ধরনের সুস্পষ্ট—বর্তমান সরকার, অর্থাৎ আওয়ামী লীগ সেদিনের ঘটনা যে পরিকল্পিতভাবে করেছে, তার একটা প্রমাণ জনসভা আকস্মিকভাবে মুক্তাঙ্গন থেকে নিয়ে গেলেন তাদের দলীয় কার্যালয়ের সামনে। এটা তো একটা বড় কারণ।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বর্তমান সরকারের আন্দোলনের ফসল ১/১১। সরকার কিন্তু ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ফাঁসায়নি। আপনারা জানেন, ২০০৮ সালের নির্বাচন ছিল কিন্তু আন্তর্জাতিক মাস্টারপ্ল্যানের একটি নির্বাচন। ওই নির্বাচনে তিনি ক্ষমতায় এসেছিলেন। ক্ষমতায় আসার পর আবার সম্পূরক চার্জশিট দেওয়া হলো, আবার নতুন করে তদন্ত করা হলো। যিনি তদন্ত করলেন, তিনি আওয়ামী লীগের নমিনেশন কিনেছিলেন। নৌকা মার্কার ছবি দিয়ে তিনি তাঁর এলাকায় পোস্টার মেরেছেন। এটাও তো একটা কারণ, আওয়ামী লীগ পরিকল্পিতভাবে ঘটনাটা ঘটিয়ে ছিল বিএনপির নেতৃত্বকে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানোর জন্য।’

রিজভী বলেন, ‘এখন কোনো কিছু প্রধানমন্ত্রীর বাইরে হয় না। বিচারিক প্রক্রিয়া, আইনি প্রক্রিয়া, মামলা দেওয়া, কাকে কোন মামলা দিতে হবে, কীভাবে ফাঁসাতে হবে, কীভাবে তার বিরুদ্ধে সন্ত্রাস-বোমা হামলা, পোড়ানোর মামলা দিতে হবে, সবকিছুই একেবারে উপর থেকে আসে। সেভাবেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করে, পুলিশ কাজ করে। ওইভাবেই বিচার হয়। এর বাইরে অন্য কোনো বিচার হয় না।’

সরকারের দুর্নীতির নানা চিত্র তুলে ধরে রুহুল কবির রিজভী আরো বলেন, ‘আমরা আজ যদি আওয়ামী লীগকে একটা ঘর ধরি, সেই ঘরের ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে বের হয় পাপুল, তাদের স্যুটকেস থেকে বের হয় সাহেদ, তাদের আলমারি থেকে বের হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮০০ কোটি টাকা। সবকিছুই তো আওয়ামী লীগের ঘরের ভেতর থেকে বের হচ্ছে। ফরিদপুরের ছাত্রলীগের সভাপতি—তার যদি শত শত কোটি টাকা পাচার হয় বাংলাদেশ থেকে, তাহলে আর কী থাকতে পারে?’