১৫, ১৭ ও ২১ আগস্ট একসূত্রে গাঁথা : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বিএনপি সরকারের রাষ্ট্রযন্ত্র নীরব ছিল বলেই সারা দেশে সিরিজ বোমা হামলা হয়েছিল। তাই বলব, ১৫ আগস্ট, ১৭ আগস্ট আর ২১ আগস্ট- এসব একই সূত্রে গাঁথা।’ আজ সোমবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ কমিটির আয়োজনে সিরিজ বোমা হামলার ১৫তম বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। তিনি তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘২০০৫ সালের এদিনে নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামা’আতুল মোজাহিদিন বাংলাদেশ-জেএমবি সারা দেশে একযোগে সিরিজ বোমা হামলা চালায়। এতে দুজন নিহতসহ অন্তত ৫০ জন আহত হয়। এতে বিস্মিত বাংলাদেশ, বিস্মিত বিশ্ব। তখন বিএনপির হাতে রাষ্ট্র পরিচালনার ভার। দেশের ৬৩টি জেলায় একযোগে বোমা হামলার জন্য দীর্ঘ প্রস্তুতি, নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা, জনবল ও বোমা সরবরাহ- এতসব একদিনে গড়ে উঠেনি।’

এ ঘটনায় রাষ্ট্রযন্ত্রের নীরবতা নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রাষ্ট্রযন্ত্র সেদিন নীরব ছিল কেন? নিশ্চয়ই সরকার প্রশ্রয়দাতা আর পৃষ্ঠপোষক ছিল। না হয় কীভাবে এ দীর্ঘপ্রস্তুতি জঙ্গিরা গ্রহণ করল। এ দেশের রাজনীতিতে যেমনি ১৫ আগস্টের মাধ্যমে নির্মম হত্যাকাণ্ডের সূচনা করেছিল, তার ধারাবাহিকতায় ২০০৪ সালের ১৭ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিলে। আবার ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলা ও সেই আগস্ট মাসে। তাই বলব, ১৫ আগস্ট, ১৭ আগস্ট আর ২১ আগস্ট- এসব একই সূত্রে গাঁথা। এ দেশে হত্যা, সন্ত্রাস আর ষড়যন্ত্রের পাশাপাশি উগ্র সাম্প্রদায়িকতা আর জঙ্গিবাদকে বিএনপিই প্রশ্রয় দিয়ে লালন-পালন করে ক্যানসারে রূপান্তর করেছে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, ‘এসব হত্যা ও ষড়যন্ত্রের মাস্টারমাইন্ড বিএনপি। এসব হত্যা, সন্ত্রাস অভিন্ন ষড়যন্ত্রের অংশ। এ দেশে হত্যা, সন্ত্রাস আর ষড়যন্ত্রের পাশাপাশি উগ্র সাম্প্রদায়িকতা আর জঙ্গিবাদকে তারাই প্রশ্রয় দিয়েছে। লালন-পালন করে ক্যানসারে রূপান্তর করেছে। সেদিনের বোমা হামলা ছিল জেএমবিসহ অসাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর শক্তি পরীক্ষা। একযোগে তারা তাদের শক্তি জানান দিয়েছিল। বিএনপি মূলত সিরিজ বোমা হামলার মধ্য দিয়ে প্রকাশ্যে আসে জঙ্গি কার্যক্রমে।’

আগস্ট এলেই শেখ হাসিনার নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত থাকার কথা জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে তারা প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে প্রশ্রয় দেয় ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য- আর এ দেশের মুক্তচিন্তাকে নিশ্চিহ্ন করার এবং মুক্তিযুদ্ধের অবিনাশী চেতনাকে মুছে ফেলার জন্য। তাই আগস্ট এলে আমরা শঙ্কায় থাকি দেশরত্ন শেখ হাসিনার নিরাপত্তা নিয়ে। ষড়যন্ত্রকারীরা এখনো সক্রিয় আছে। তারা সুযোগ খুঁজছে। শেখ হাসিনা সরকার জঙ্গিগোষ্ঠীর বিষদাঁত ভেঙে দিলেও গোপনে গোপনে এখনো তাদের সক্রিয়তার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে।’

দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাই বিএনপির গাত্রদাহ বলে মন্তব্য করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘আমাদের অর্থনৈতিক মুক্তির স্থপতি দেশরত্ন শেখ হাসিনা। উন্নয়নবিরোধী অপশক্তি এখনো আছে চারপাশে। তারা দেশের উন্নয়ন ও এগিয়ে যাওয়াকে মেনে নিতে পারে না। উগ্রসাম্প্রদায়িক অপশক্তি এখনো সুযোগ খুঁজছে। তারা শান্তি ও স্বস্তির বাংলাদেশ চায় না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সমৃদ্ধ আগামীর পথে এগিয়ে যাওয়া তাদের গাত্রদাহের কারণ। তারা এ দেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় নিয়ে যেতে চায়, চায় সংঘাতে জর্জরিত রক্তময় প্রান্তর।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি প্রমুখ বক্তব্য দেন।