সিরিজ বোমা হামলা: ১৫ বছরেও শেষ হয়নি সব মামলার বিচার

নিজস্ব প্রতিবেদক: পনেরো বছরেও শেষ হয়নি দেশজুড়ে সিরিজ বোমা হামলার বিচার। ২০০৫ সালের ১৭ই আগস্টের ওই হামলায় এখনও ৩২ শতাংশের বেশি মামলা বিচারাধীন।

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই অগ্রাধিকারভিত্তিতে এসব মামলার বিচার শেষ করার উদ্যোগ নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী। আর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট বলছে, গত দশকের তুলনায় এখন জঙ্গিদের সক্ষমতা খুবই নগণ্য।

বিএনপি-জামায়াতের শাসনামলে দুহাজার পাঁচের সতোরোই আগস্ট সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলা চালিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করেছিল নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ-জেএমবি। সেদিন সকাল এগারোটা থেকে সাড়ে এগারোটার মধ্যে একযোগে তেষট্টিটি জেলার চারশটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পাঁচশ বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল জঙ্গিরা।

ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘এই সিরিজ বোমা হামলা ছিল পৃথিবীর ইতিহাসেই অন্যতম সফল জঙ্গি হামলা। তারা তাদের উদ্দেশ্য পুরোপুরি বজায় রেখেছিল। মেক্সিমাম কেপাসিটি বলতে যা বোঝায় তখন তাদের সেটা গড়ে উঠেছিল।’

তিনি আরো বলেন, ‘২০০০-২০০৫ সালের তুলনায় এখনকার জঙ্গি সংগঠনগুলোর সক্ষমতা খুবই নগণ্য। হলি আর্টিজানের হামলাসহ গত কয়েক বছরে জঙ্গি সংগঠনগুলোর যে কেপাসিটি গড়ে উঠেছিল তা ২০০৫ সালের ১৭ই আগস্টের মত গড়ে উঠেনি।’

সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় ঢাকার আদালতে আঠারোটিসহ সারাদেশ মামলা হয়েছিল ১৫৯টি। এরমধ্যে ১৪৩টি মামলায় অভিযোগপত্র, ষোলোটি মামলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে পুলিশ। বিচার শেষ হয়েছে ছিয়ানব্বইটি মামলার।

জেএমবির শীর্ষনেতা শায়খ আবদুর রহমান ও সেকেন্ড ইন কমান্ড সিদ্দিকুল ইসলাম বাংলাভাইসহ ৩৫ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ডের আদশ হয়েছে। যাবজ্জীবন দণ্ড পেয়েছে একশ একচল্লিশ জন। এখনও বিচারাধীন রয়েছে ৪৭টি মামলা।

প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু বলেন, ‘মামলায় দীর্ঘ সময় নেয়ার বড় কারন হচ্ছে সাক্ষী না আসা। দেখা গেল পুলিশ সমন নিয়ে গেছে, সাক্ষীকে সেখানে পাওয়া যায়নি। সময়মত সাক্ষী হাজির করতে না পারায় বত্রিশ শতাংশের বেশি মামলা এখনও ঝুলছে।’

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক মুঠোফোনে বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সিরিজ বোমা হামলার মামলাগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিষ্পত্তি করার ব্যবস্থা নেয়া হবে। জঙ্গি সংক্রান্ত যে কোন মামলার দ্রুত বিচার নিশ্চিত করতে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’