কালোবাজারি বন্ধে অনলাইনে টিকেট বিক্রি : রেলমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: মহামারি নভেল করোনাভাইরাসজনিত পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় দেশের বিভিন্ন রুটে আজ রোববার থেকে আরো ১৩টি ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন রুটে এই ১৩টি যাত্রীবাহী ট্রেন আসা-যাওয়া শুরু করেছে।

এসব ট্রেন চলাচলের বিষয়ে খোঁজখবর নিতে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শন করেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘কালোবাজারি বন্ধের জন্যই আমরা ট্রেনের টিকেট অনলাইনে বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছি। এতে আমরা সফলও হয়েছি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ২৪ মার্চ সব যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিই আমরা। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় গত ৩১ মে প্রথম দফায় আটটি রুটে আন্তনগর ট্রেন চালু করি। গত ৩ জুন দ্বিতীয় দফায় আরো ১১ রুটে ট্রেন চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়। আজ আরো ১২টি রুটে আন্তনগর ও একটি রুটে কমিউটার ট্রেনসহ মোট ১৩টি ট্রেন নতুন করে চলাচল শুরু করেছে। এখন সব মিলিয়ে ৩০টি ট্রেন আসা-যাওয়া করছে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘আন্তনগর ট্রেনের টিকেট আগের মতো অনলাইনে ও মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে বিক্রি করা হবে। যাত্রার দিনসহ পাঁচ দিন পূর্বে আন্তনগর ট্রেনগুলোর অগ্রিম টিকেট ইস্যু করা যাবে।’

আজ রোববার থেকে যে ১৩টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে, সেগুলো হলো—পঞ্চগড়-ঢাকা-পঞ্চগড় রুটে একতা এক্সপ্রেস, খুলনা-ঢাকা-খুলনা রুটে সুন্দরবন এক্সপ্রেস, রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে পদ্মা এক্সপ্রেস, ঢাকা-সিলেট-ঢাকা রুটে পারাবত এক্সপ্রেস, ঢাকা-মোহনগঞ্জ-ঢাকা রুটে হাওড়া এক্সপ্রেস, ঢাকা-তারাকান্দি-ঢাকা রুটে অগ্নিবীণা এক্সপ্রেস, রাজশাহী-চিলাহাটী-রাজশাহী রুটে তিতুমীর এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম-ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে মহানগর এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম-ময়মনসিংহ-চট্টগ্রাম রুটে বিজয় এক্সপ্রেস, ঢাকা-নোয়াখালী-ঢাকা রুটে উপকূল এক্সপ্রেস, খুলনা-চিলাহাটি-খুলনা রুটে সীমান্ত এক্সপ্রেস, গোবরা-রাজশাহী-গোবরা রুটে টঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস।