সরকারি কেন্দ্রে স্যালাইন উৎপাদন বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি প্রতিষ্ঠান জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে তরল স্যালাইন ও ব্লাডব্যাগ উৎপাদন প্রায় দেড় মাস ধরে বন্ধ। একই সাথে বন্ধ আছে মুমূর্ষু রোগীদের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় তরল স্যালাইন ৩ শতাংশ সোডিয়াম ক্লোরাইডের উৎপাদনও। ফলে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে দ্বিগুণ দামে তরল স্যালাইন কিনতে হচ্ছে সরকারকে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা অনুযায়ী পরিবেশ ও মান বজায় রাখতে না পারায় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের নির্দেশে উৎপাদন বন্ধ করেছে জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট।

রোগীর শরীরে পুশ করার জন্য ব্যবহৃত তরল স্যালাইনের মোট চাহিদার অর্ধেক যোগান দেয় সরকারি প্রতিষ্ঠান জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট। বছরে তারা উৎপাদন করে ১৫ লাখ ব্যাগ তরল স্যালাইন যা সরকারি হাসপাতালে রোগীদের বিনামূল্যে দেয়া হয়। এছাড়া মুমূর্ষু রোগীদের জীবন বাঁচাতে ব্যবহৃত ৩ শতাংশ সোডিয়াম ক্লোরাইড স্যালাইনও উৎপাদন করে তারা। গত ১৫ জুন থেকে তাদের সব ধরনের স্যালাইন উৎপাদন বন্ধ। পাশাপাশি বন্ধ করা হয়েছে ব্লাডব্যাগ ও ইনফিউশন সেট উৎপাদনও। ফলে সরকারি হাসপাতালে তাদের স্যালাইন সরবরাহ হচ্ছে না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী উৎপাদনের পরিবেশ ও মান নিশ্চিত করতে না পারায় ঔষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠানটির সব ধরণের তরল স্যালাইন উৎপাদন বন্ধের নির্দেশ দেয়। সাময়িকভাবে বাতিল করা হয়েছে, জৈব ওষুধ উৎপাদনের লাইসেন্সও।

জনস্বাস্থ্যের উৎপাদিত ৩ শতাংশ সোডিয়াম ক্লোরাইড স্যালাইন খুচরা পর্যায়ে বিক্রি হতো ৪২ টাকা ২৫ পয়সায়। এখন তিনটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানকে এই স্যালাইন উৎপাদনের লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। এদের উৎপাদিত স্যালাইনের দাম দ্বিগুণ। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে সাশ্রয়ী মূল্যে ওষুধ পাওয়ার অধিকার হারালো সাধারণ জনগণ।

জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের ভবনটি আধুনিকায়ন ও ঘাটতিগুলো দ্রুত কাটিয়ে আবারো উৎপাদন চালু করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়ার পরামর্শও দিয়েছেন, বিশেষজ্ঞরা।