রাজধানীর কোন এলাকায় কত আক্রান্ত?

দেশে করোনাভাইরাসে গেল ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৯৬০ জন। এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৫ জন মারা গেছেন। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন হাজার। মারা যাওয়া ২৬ জন পুরুষ ও ৯ জন নারী। মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এখন দুই লাখ ২৯ হাজার ১৮৫।

মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।
৮১টি পিসিআর-ল্যাবরেটরিতে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ হাজার ৭০টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১২ হাজার ৭১৪টি নমুনা। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো ১১ লাখ ৩৭ হাজার ১৩১টি। নতুন পরীক্ষায় করোনা মিলেছে দুই হাজার ৯৬০ জনের মধ্যে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল দুই লাখ ২৯ হাজার ১৮৫ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে আরও ৩৫ জনের। ফলে ভাইরাসটিতে মোট মারা গেলেন তিন হাজার মানুষ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও এক হাজার ৭৩১ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ২৭ হাজার ৪১৪ জনে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় আক্রান্তের সংখ্যা হলো-মিরপুর এলাকা ২,১৮৭, উত্তরা ৮৫৯, মোহাম্মদপুর ৭২৩, মহাখালী ৬১৭, ধানমন্ডি ৬০১, যাত্রাবাড়ী ৫৯৬, মুগদা ৫৫৫, মগবাজার ৪১৩, খিলগাঁও ৪০৪, তেজগাঁও ৩৭৯, রামপুরা ৩৭৭, বাড্ডা ৩৫৮, লালবাগ ৩৩৭, কাকরাইল ৩১৮, গুলশান ৩১৪, বাসাবো ২৭৬, রাজারবাগ ২৪৫, মালিবাগ ২৩৬, গেন্ডারিয়া ২০৪, ওয়ারী ১৮৭, আদাবর ১৭৫, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা ১৬৮, আজিমপুর ১৬৫, বাবু বাজার ১৬২, বনশ্রী ১৬২, বংশাল ১৬০, আগারগাঁও ১৫৯, শ্যামলী ১৫৬, ডেমরা ১৫৩, হাজারীবাগ ১৪৭, বনানী ১৪১, শাহবাগ ১৪০, রমনা ১৩১, শান্তিনগর ১১৭, পল্টন ১১২ ও পোস্তগোলা ৫ জন।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। তার ঠিক ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।