অনুশীলনে ফিরে তাসকিনের স্বস্তি

ক্রীড়া ডেস্ক: করোনার কারণে দীর্ঘ বিরতির পর অনুশীলনে ফিরেছেন ক্রিকেটাররা। শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে প্রতিদিন আসছেন তিন-চারজন করে ক্রিকেটার। প্রথমে মুশফিকুর রহিম, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন আর শফিউল ইসলাম অনুশীলনে নামলেন। এর দুদিন পর এই অনুশীলনে যোগ দেন তাসকিন আহমেদ।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিসিবির ব্যবস্থাপনায় থেকে অনুশীলন শুরু করেন তাসকিন। এদিন সকাল সাড়ে এগারোটা থেকে শের-ই-বাংলায় রানিং করার কথা ছিল তাসকিনের। যদিও নির্ধারিত সময় শুরু করতে পারেননি। প্রায় পৌনে বারোটার দিকে ট্রেনার ইফতির উপস্থিতিতে আধাঘন্টা রানিং করেছেন এই পেসার।

তাসকিন আহমেদ ছাড়াও অনুশীলন করেছেন শফিউল ইসলাম, মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ মিঠুন।

মুশফিকুর রহিম এদিন করেছেন পূর্ণাঙ্গ অনুশীলন। ব্যাটিং, রানিং, জিম কার্যক্রমের বাইরে গস্নাভস হাতে কিপিং অনুশীলনও করেছেন। সকাল সাড়ে ৯টায় ইনডোরে ব্যাটিং দিয়ে দিনের অনুশীলন শুরু করেন মুশফিক। ঘণ্টাখানেক পর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের সবুজ চত্বরে করেছেন ২৫ মিনিটের মতো রানিং। পরে মিনিট দশেক সময় দিয়েছেন কিপিংয়ে।

মুশফিকের আগে অনুশীলনের জন্য স্টেডিয়ামে হাজির হন পেসার শফিউল ইসলাম। সকাল ৯টায় এসে ১০ থেকে ১৫ মিনিটের জিম শেষে দ্বিগুণ সময় ধরে করেন রানিং। সাড়ে ৯টার পর আসেন মোহাম্মদ মিঠুন। তার সিডিউলে রানিং ছিল না। ৩০ মিনিটের জিম সেশন শেষে ঘণ্টাখানেক করেছেন ব্যাটিং অনুশীলন।

গত সোমবার (২০ জুলাই) বিসিবির পাঠানো অনুশীলনের নতুন সূচিতে তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান রানার নাম যুক্ত করা হয়। ফলে অনুশীলনে ঢাকাস্থ ক্রিকেটারদের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ছয়ে। সূচি অনুযায়ী মঙ্গলবার থেকে মেহেদী রানা ব্যক্তিগত অনুশীলন শুরু করেছেন। আর তাসকিন আহমেদ শুরু করলেন গতকাল থেকে। প্রথম পর্বের এক সপ্তাহের এই অনুশীলন চলবে ২৬ জুলাই পর্যন্ত।

রানিং শেষে তাসকিন জানালেন, ‘আলহামদুলিলস্নাহ অনেক ভালো লাগছে, কারণ এতদিন পরে মিরপুর স্টেডিয়ামে ঢুকতে পারলাম। অবশ্যই রানিং করেছি ভালো লাগছে কিন্তু তার চেয়েও বেশি ভালো লাগছে স্টেডিয়ামে ঢুকতে পেরেছি। ড্রেসিংরুমে এতদিন পর ঢোকা, আসলেই অন্যরকম ভালো লাগা কাজ করছে। বাসা থেকে যতটুকু পেরেছি ট্রেনিং করেছি কিন্তু মিরপুর স্টেডিয়ামে আসার সুযোগ হয়নি। আজকে যখন প্রায় ৫ মাস পর মিরপুর স্টেডিয়ামে ঢুকলাম, স্বস্তি লাগছে।’

করোনাকালে ঘরবন্দি সময়টিও ঘরে বসে কাটাননি তাসকিন আহমেদ। নিজেকে ফিট রাখতে সম্ভাব্য সবই করেছেন। কখনো রাজধানীর বসিলার তপ্ত বালুতে দৌড়েছেন, কখনো বা জিমে করেছেন ফিটনেস অনুশীলন। বাদ যায়নি বোলিং অনুশীলনও। নিজ বাসার গ্যারেজে করেছেন বোলিং ড্রিল আর ধানমন্ডি ৪ নাম্বার মাঠে সম্প্রতি শুরু করেছেন বোলিং অনুশীলন। অপেক্ষা ছিল কেবল প্রিয় ভেন্যু মিরপুর শের-ই-বাংলায় ফেরার। অবশেষে সেটাও হলো।