ঈদযাত্রায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনের আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদযাত্রায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার মধ্য দিয়ে সংক্রমণ রোধ করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ সোমবার দুপুরে রাজধানীর বনানীতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) প্রধান কার্যালয়ে ঈদুল আজহা উপলক্ষে সড়ক-মহাসড়কে যাত্রীদের যাতায়াত নিরাপদ করতে করণীয় নির্ধারণ-সংক্রান্ত সভায় বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এ আহ্বান জানান মন্ত্রী।

এ সময় সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘ঈদুল ফিতরে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় সংক্রমণের বিষয়ে আমাদের উদ্বেগ ছিল না। কিন্তু এই ঈদে সরকার বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করে জনস্বার্থে গণপরিবহন চালু রাখার পক্ষে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যদিও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ ছিল পরিবহন বন্ধ রাখার। অনেকেই গণপরিবহন, তথা ঈদযাত্রায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার উচ্চ ঝুঁকির কথা বলেছেন। এ ক্ষেত্রে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ বিআরটিএর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা যে যেই কাজে যুক্ত থাকি না কেন, সবাই এ দেশের নাগরিক। দেশের ও জনগণের কল্যাণ আমাদের চাওয়া। তাই আমি সব অংশীজনকে ঈদযাত্রায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার মধ্য দিয়ে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা রোধে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছি।’

পশুর হাটের মাধ্যমে সংক্রমণের আশঙ্কা ব্যক্ত করে সবাইকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহনে কোরবানির পশু পরিবহন বন্ধ করতে হবে। এটি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। প্রতিটি টার্মিনালে টাস্কফোর্স কার্যকর থাকবে। বিআরটিএর মোবাইল কোর্ট সার্বক্ষণিক কাজ করবে। অভিযোগ পেলে তারা ব্যবস্থা নেবে।’

গাড়ি চালানোর আগে ও পরে গাড়ির ভেতর-বাইরে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। ঈদের তিন দিন আগে পণ্যবাহী ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে জরুরি সার্ভিস ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য পরিবহনে এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।

সংক্রমণ রোধে সরকার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘টার্মিনাল ও ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপনা আরো স্বাস্থ্যবান্ধব করা জরুরি। সবার মাস্ক পরিধান করা বাধ্যতামূলক। সরকারি ছুটির সঙ্গে সমন্বয় করে বিজিএমইএ এবার গার্মেন্টসগুলোতে ছুটি দেবে। যেদিন যে এলাকায় ছুটি হবে, সে এলাকার চাপ নিয়ন্ত্রণে সংশ্লিষ্টরা আগেই প্রস্তুতি রাখবেন।’ দেশের যেসব সড়কে সমস্যা আছে, তা ঈদের আগে মেরামত করার আহ্বান জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

জনগণকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সচেতন না হলে এই ঈদযাত্রা আমাদের কারো কারো জন্য প্রাণহানির মতো ঝুঁকি বয়ে আনতে পারে।’

জীবন-জীবিকার ভারসাম্য রক্ষায় সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চালুর অনুমতি দিলেও স্বাস্থ্যবিধি ও ভাড়া সমন্বয় না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘যেসব পরিবহন মালিক সমিতি সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যায়, জনস্বার্থ ও যাত্রীর বিরুদ্ধে যায়, তাদের বিষয়ে করণীয় নির্ধারণে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা, বিআরটিএর চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার, বিআরটিসির চেয়ারম্যান মো. এহছানে এলাহিসহ পরিবহন-সংশ্লিষ্ট নেতারা।