ভোলায় ওজন দরে কোরবানীর গরু বিক্রি

কর্পোরেট সংবাদ ডেস্ক : আসন্ন কোরবানীর ঈদ উপলক্ষে ভোলা জেলায় ওজন দরে গরু বিক্রি চলছে। উপজেলা সদরের পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নে আকতার ডেইরি ফার্মে আজ থেকে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ওজন মাপার ফিতার সাহায্যে ৫০০ টাকা কেজি দরে গরু বিক্রি হচ্ছে। এতে করে দর করার ঝামেলা থেকে মুক্ত হয়ে স্বল্প সময়ে পছন্দের গরুটি নিতে পারছেন ক্রেতারা। আর ওজন দরে গরু বিক্রি হওয়াতে পশুর ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন বিক্রেতা।

আকতার ডেইরি ফার্মের মালিক মো: আকতার হোসেন বাসস’কে বলেন, গত বছর থেকে ওজন দরে গরু বিক্রি কার্যক্রম শুরু করেন তিনি। এতে সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া পাওয়া গেছে। মূলত তার খামার দুধের জন্য হলেও কোরবানীতে কয়েক বছর ধরে গরু বিক্রি করছেন তিনি। তার খামারে জন্ম নেওয়া এসব গরু সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে লালন পালন করা হয়ে থাকে।

সদর উপজেলা প্রািণ সম্পদ কর্মকর্তা ডা. দিনেশ চন্দ্র বলেন, ওজন দরে গরু বিক্রির ধারনাটি নতুন হলেও এটি বেশ চমৎকার ও গরু কেনার একটি ঝামেলা বিহীন পদ্ধতি। এ পদ্ধতিতে ক্রেতাদের ঠকার সুযোগ থাকছেনা। সাধারণত ১০০ কেজি ওজনের যে গরু থেকে ৬৫ কেজি মাংস পাওয়া যায়। বাকিটা নাড়ি-ভুড়ি । সে ক্ষেত্রে ওজনের মাপটা এটা মাথায় রেখে করতে হয়।

এ ব্যাপারে আকতার হোসেন আরো বলেন, আমরা যখন ফিতা দিয়ে গরুর ওজন দেই তখন গরুর পরিত্যক্ত অংশ বাদ দিয়েই ওজন দেই। সে ক্ষেত্রে কারোর কোন অভিযোগ থাকেনা। সম্পূর্ণর্ আধুনিক ও ডিজিটাল পন্থায় ওজন নির্ণয় করা হয়। এবছর কোরবানীর জন্য ৫০টি গরু প্রস্তুত করেছেন তিনি। তার এখানে ১০০ কেজি থেকে হাজার কেজি পর্যন্ত গরু রয়েছে। তার খামার থেকেই গৃহস্ত ও ব্যাপারীরা গরু কিনছেন। তবে আগামীতে ওজন মাপর জন্য ডিজিটাল মেশিন’র ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।

পৌর এলাকার ২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ব্যাবসায়ী সোলায়মান মামুন এখান থেকে ওজন দরে কোরবানীর গরু কিনতে এসেছেন। তিনি বলেন, একেতো করোনা মহামারির সমস্যা। তার উপরে হাটের মতো দালাল বা দর-দামের ঝামেলা নেই এখানে। তাই তিনি ওজন দরে গরু কিনছেন। সুবিধা হচ্ছে ঈদের আগের দিন গরু বাসায় পৌঁছে দেওয়া হয়।

জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. ইন্দ্রজীত কুমার মন্ডল বলেন, এবছর আমাদের চাহিদার চেয়ে বেশি কোরবানীর গরুর মজুদ রয়েছে। ওজন দরে গরু বিক্রি কার্যক্রম ঢাকার বড় বড় খামারগুলোতে চালু আছে। এটি গরু বিক্রির একটি ডিজিটাল পদ্ধতি।

তিনি বলেন, আমাদের এখানেও আমরা এ পদ্ধতি চালু করার জন্য খামারিদের বলছি। আকতার ডেইরি ফার্ম যেহেতু এটি চালু করেছে আমরা তাদের সাধুবাদ জানাই। আগামীতে ওজন দরে গরু বিক্রি আরো বেশি খামারে চালু হবে বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তিনি।