মাল্টার পররাষ্ট্র সচিবের সাথে বাংলাদেশ হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

ডেস্ক রির্পোট : মাল্টায় নিযুক্ত বাংলাদেশের অনাবাসী হাইকমিশনার মো. জসীম উদ্দিন গতকাল মঙ্গলবার মাল্টার পররাষ্ট্র দপ্তরে সে দেশের পররাষ্ট্র সচিব ক্রিস্টোফার কুটাজারের সাথে বৈঠক করেছেন। ঘণ্টাব্যাপী এ বৈঠকে বাংলাদেশ ও মাল্টার মধ্যকার স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি নিয়ে বিস্তারিত আলাপ আলোচনা হয়। এ সময় বাংলাদেশের হাইকমিশনার নবনিযুক্ত পররাষ্ট্র সচিবকে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন প্রেরিত শুভেচ্ছাবার্তা হস্তান্তর করেন।

হাই কমিশনার মো জসিম উদ্দিন গতবছর মাল্টায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঐতিহাসিক দ্বিপাক্ষিক সফরের কথা উল্লেখ করে বলেন, এই সফরের মধ্য দিয়ে দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্ক গতিময়তা লাভ করে।

তিনি আরো উল্লেখ করেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের সফরকালে বিশেষত অর্থনৈতিক কূটনীতি প্রাধান্য পায়, যার ফলে দু’দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচনের সুযোগ সৃষ্টি হয়। বাংলাদেশ হাইকমিশনার কোভিড পরবর্তী অনুকূল পরিস্থিতিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের সফর অনুষ্ঠানের বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এছাড়া তিনি দুদেশের পররাষ্ট্র সচিবের মধ্যে আলাপ-আলোচনার জন্য স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারকের আওতায় পররাষ্ট্রসচিব পর্যায়ের প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠানের জন্য মাল্টার পররাষ্ট্র সচিবকে অনুরোধ জানান।

হাই কমিশনার মো জসিম উদ্দিন ব্যবসায়ীদের মধ্যে অচিরেই আলাপ আলোচনা শুরুর বিষয় গুরুত্ব আরোপ করেন। এই বৈঠককালে পররাষ্ট্র সচিব ও হাইকমিশনার কোভিড পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দু’দেশের সরকারের প্রচেষ্টা ও সুদূরপ্রসারি অর্থনৈতিক প্রভাব মোকাবেলায় গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি সম্পর্কে আলোচনা করেন।

মাল্টার পররাষ্ট্র সচিব কোভিড সংক্রমণ মোকাবেলায় তাদের গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচির উপর আলোকপাত করে এই ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ভবিষ্যতেও সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

তিনি বলেন, পর্যটন শিল্পের উপর নির্ভরশীল মাল্টার জন্য এই সতর্কতা বিশেষভাবে প্রযোজ্য।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মাল্টা সফরের ফলে সৃষ্ট গতিময়তা সম্পর্কে একমত প্রকাশ করে ক্রিস্টোফার কুটাজার বাংলাদেশের সাথে একযোগে কাজ করে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

এ প্রসঙ্গে তিনি সুবিধাজনক সময়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠানের আশাবাদ ব্যক্ত করে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে মাল্টা ও বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রাথমিক যোগাযোগ প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব দেন।

মাল্টায় বসবাসরত প্রবাসীদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়, নিরাপদ অভিবাসন, রোহিঙ্গা সমস্যা ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দু’দেশের মধ্যে ক্রমবর্ধমান সহযোগিতা নিয়েও বৈঠকে আলাপ আলোচনা হয়।

এই বৈঠকে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সিলর মোহাম্মদ খালেদ এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েরর দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক কর্মকর্তা সিলিয়া নরবার্ট উপস্থিত ছিলেন।