ডিবিতে ড. সাবরিনা আরিফ

নিজস্ব প্রতিবেদক: তেজগাঁও থানা থেকে জেকেজি হেলথ কেয়ারের মামলাটি ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনারের নির্দেশে তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশের তেজগাঁও বিভাগ। ডিবির তেজগাঁও বিভাগের ডিসি গোলাম মোস্তফা রাসেল জানান, জেকেজির মাধ্যমে কারা নমুনা পরীক্ষার সার্টিফিকেট নিয়েছে আমরা এসব বিষয়ও খতিয়ে দেখবো। এই প্রতিষ্ঠান থেকে কারা লাভবান হয়েছে তাও খতিয়ে দেখা হবে। সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েই মামলাটি তদন্ত করবে ডিবি। আজ মঙ্গলবার জিঙ্গাসাবাদের জন্য ডিবিতে আনা হয়েছে ড. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে।

গতকাল সোমবার দুপুরে এই মামলায় সাবরিনাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ড পেয়েছে পুলিশ। আনুষ্ঠানিকভাবে মামলার সবকিছু বুঝে নেবেন ডিবির কর্মকর্তারা। তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মানুষের সঙ্গে প্রতারণা শুরুর বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যখন জানতে পেরেছে তখন থেকেই অভিযুক্তরা বিভিন্নভাবে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছে এসব তাদের চাকরিচ্যুত কর্মচারীরা করেছে।

এরআগে রবিবার (১২ জুলাই) দুপুরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হৃদরোগ ইনস্টিটিউট থেকে ডা. সাবরিনাকে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ডিসির কার্যালয়ে ডেকে নেয় পুলিশ। পরে তাকে তেজগাঁও থানায় দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

পুলিশ বলছে, জেকেজি হেলথ কেয়ারে যেসব কর্মী কাজ করতো, তাদের অনেকেই টেকনিকালি দক্ষ ছিল না। কিন্তু তাদেরকে কোনও রকম নামে মাত্র প্রশিক্ষণ দিয়ে অবৈধভাবে টাকা আত্মসাৎ করতে মাঠে ছেড়ে দেওয়া হয়। আর এই প্রশিক্ষণ ও লোক সরবরাহ কাজে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জন ডা. সাবরিনা জড়িত ছিল। গ্রুপটির চেয়ারম্যান হিসেবে সে নিজেকে দাবি করে বক্তব্যও দিয়েছে। কিন্তু এখন সবকিছু অস্বীকার করছে। জেকেজির আরিফুল ও সাবরিনাকে মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদের কথাও ভাবছে পুলিশ।