লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে বন্যপ্রাণির অবাধ বিচরণ

মৌলভীবাজার সংবাদদাতা: করোনা ভাইরাসে সারাবিশ্বের মতো বন্দী বাংলাদেশও। এই বন্দীদশা মানুষের জন্য কষ্টের হলেও প্রাণ-প্রকৃতির জন্য বয়ে এনেছে আশীর্বাদ। মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া উদ্যানও যেমন কোলাহলমুক্ত পরিবেশে সেজেছে আপনরূপে। মানুষের আনাগোনা না থাকায় অবাধে বিচরণ করছে বন্যপ্রাণীরাও।

করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট অচলাবস্থার মধ্যে প্রকৃতি নতুনভাবে সাজিয়েছে মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানকে। কোলাহলমুক্ত শান্ত বনে এখন কান পাতলেই শোনা যাবে কীট-পতঙ্গের বিচিত্র শব্দ আর পশু পাখির হাঁক-ডাক। মানুষের আনাগোনা না থাকায় অবাধে ছুটোছুটিও করছে নানা প্রজাতির প্রাণী।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শুরুর পর গত ১৯মার্চ থেকে লাউয়াছড়ায় পর্যটক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এরপর থেকেই বনের দৃশ্যপট বদলাতে থাকে।

পরিবেশবাদীরা বলছেন, অনিয়ন্ত্রিত লোকসমাগম আর যানবাহনের শব্দে বনের প্রাণ-প্রকৃতি হুমকিতে পড়েছিলো। করোনার এই সময়ের মতো সবসময়ই যদি মানুষের আনাগোনা নিয়ন্ত্রণ করা যায় তাহলে উদ্যানে স্বস্থির নিঃশ্বাস ফেলতে পারবে প্রাণীকূল।

পশু-পাখির অভয়াশ্রমে যাতে পর্যটকরা প্রবেশ করতে না পারে সে ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করছে বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন।

১২শ’ ৫০ হেক্টরের লাউয়াছড়া বনকে ১৯৯৬ সালে সরকার জাতীয় উদ্যান ঘোষণা করে। এখানে রয়েছে ১৬৭ প্রজাতির উদ্ভিদ ও ২৭৬ প্রজাতির প্রাণী।