বাবুগঞ্জে ক্ষমতার দাপটে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ।

উপজেলার মাধবপাশা ইউনিয়নে সরকারি রাস্তা থেকে মেহেগুনি গাছ কর্তনের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার মাধবপাশা ইউনিয়নে পাংশা ৭নং ওয়ার্ডে আনসার উদ্দিন নেগাবান, পিতা মফিজ উদ্দিন নেগাবান,ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে সরকারি গাছ কেটে নেবার অভিযোগ পাওয়া গেছে ।এ বিষয়ে বাবুগঞ্জ উপজেলা বন বিভাগের কর্মকর্তা প্ল্যান্টেশন ম্যানেজার নিতাই দাস ও মোঃ শাহরুখজ্জামান খবর পেয়ে ঘটনাস্থনে ছুটে যান। ঘটনা স্থানে আনসার নেগাবান কে না পেয়ে মুঠোফোনে আনসার নেগাবানের কাছে গাছের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বন কর্মকর্তাদেরকে অকাথ্য ভাষায় গালাগল করে বলে শালা তুই আমার কাজে বাধা দিলি ক্যান এই গাছ আমার। আমাকে কাশিপুর রেঞ্জ কর্মকর্তা সালাম জোমাদ্দার এই গাছ কাটতে বলছে এই গাছ আমার । আমি আগামীকাল তোদের নামে চাঁদাবাজি মামলা দিব বলবো আমার কাছে ৫০,০০০ হাজার টাকা চাঁদা চাইছে। কাল উপজেলা ইউএনও এর কাছে লেখিত দরখাস্ত দিবো। আমি মুক্তিযোদ্ধা আমার ক্ষমতা জানো? তোদের চাকরি খাবো। আমি আগামীকাল এই গাছ কাটবো তোদের কি কি ডকুমেন্ট আছে নিয়ে আসবি। দেখি কি করতে পারিস। তবে আনসার নেগাবানের ব্যাপারে স্থানীয় সূত্রেঃ জানাগেলো কিছু দিন আগে এক অসহায় মহিলা জিবুনিকে অনেক মারধর করে এক ছড়া কলার জন্য তার বাড়ি একই গ্রামে।তিনি কিছুদিন আগে সাতমাইল পল্ট্রির দোকান ভাংচুর করে লুট করে নেয় টাকাকড়ি এবং মামলাও হয় এছাড়াও আনসার নাকি ভূয়া সার্টিফিকেট দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে আসলে সে আসল মুক্তিযোদ্ধা নায়!

বাবুগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম বিশ্বাস বলেন আমি বিষয়টা দেখবো আমার কর্মকর্তাকে কেন হুমকি দিল। সে যতই ক্ষমতাবান হোক না কেন আমি আইনগত ব্যবস্থা নিব বরিশাল কাশিপুর বন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত রেঞ্জ কর্মকর্তা সালাম জোমাদ্দার সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন কিছু লোক আছে যারা আমার নাম বেচে খায় কিন্ত আমি এ ব্যাপার কছুই জানিনা। আমি যদি অনুমতি দিতাম তাহলে লেখিত দিতাম।

 

বাবুগঞ্জ প্রতিনিধি