লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি নিয়ে গবেষণার জন্য রসায়নে নোবেল তিন বিজ্ঞানীর

লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি নিয়ে গবেষণার জন্য ২০১৯ সালে রসায়নে নোবেল প্রাইজ পেয়েছেন জন বি. গুডেনাফ, এম. স্ট্যানলি হুইটিংহাম এবং আকিরা ইয়োশিনো। খবর যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যম সিএনএনের। নোবেল কমিটি জানায়, এই তিন বিজ্ঞানী লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি নিয়ে কাজ করার জন্য পাওয়া পুরস্কারটির নয় মিলিয়ন সুইডিশ ক্রোনার (নয় লাখ ১০ হাজার ডলার) ভাগ করে নেবেন।

এই কমিটি টুইট বার্তায় জানায়, লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি আমাদের জীবনে বিপ্লব ঘটিয়েছে। মোবাইল ফোন থেকে ল্যাপটপ এবং ইলেক্ট্রনিক যানবাহনসহ সবকিছুতে এই ব্যাটারি ব্যবহৃত হচ্ছে। আরও জানায়, রসায়নে নোবেল প্রাইজ পাওয়া এই তিন বিজ্ঞানী তাদের কাজের মাধ্যমে একটি তারহীন, জীবাশ্ম জ্বালানিমুক্ত সমাজের ভিত্তি স্থাপন করেছেন। এই কমিটির এক বিবৃতি অনুসারে, আমেরিকান-ব্রিটিশ রসায়নবিদ হুইটিংহাম ১৯৭০ এর দশকের শুরুর দিকে প্রথম কার্যকরী লিথিয়াম ব্যাটারি তৈরি করেন কিন্তু এটি খুবই বিস্ফোরক ছিল।

আমেরিকান অধ্যাপক গুডেনাফও অনেক শক্তিশালী ব্যাটারি তৈরি করেন। পরে জাপানিজ রসায়নবিদ ইয়োশিনো ব্যাটারি থেকে পিওর লিথিয়াম সরিয়ে ১৯৮৫ সালে প্রথম বাণিজ্যিকভাবে সফল লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি তৈরি করেন। এটি পিওর লিথিয়ামের চেয়ে অনেক বেশি নিরাপদ ও কার্যকরী। এখন সেল ফোন, ল্যাপটপ ও অন্যান্য ডিভাইসে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি ব্যবহৃত হচ্ছে।