বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে যশোরে মানববন্ধন

বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে যশোরে মানববন্ধন করেছে সাধারণ ছাত্র পরিষদ। বুধবার বেলা ১২টায় প্রেসক্লাব যশোরের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন সাধারণ ছাত্র পরিষদ যশোরের আহŸায়ক আফরোজা সুলতানা মৌ যুগ্মআহŸায়ক অলিক মাহমুদ, নুসরাত নাজনীন। তারা বলেন, ভিন্নমতের জন্য নির্মমভাবে এ হত্যাকাÐ মেনে নেয়া যায় না। এঘটনায় দায়িরা যতই শক্তিশালী হোক না কেন তাদের আটক করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।
এদিকে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয়ের সাধারন ছাত্র ছাত্রীরা বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার বিচার ও হত্যাকারিদের ফাঁসির দাবি জানিয়ে মানব বন্ধন কর্মসুচি পালন করে। বক্তারা বলেন , কোন মেধাবীর এই ধরনের করুন মৃত্যু কেউ মেনে নিতে পারে না। তারা বলেন, যারা ছাত্ররাজনীতির নামে দলের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করছে তাদেরকে কঠোর ভাবে দমন করতে হবে।
আজ ০৮ অক্টোবর মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহনে এ কর্মসূচি পালিত হয়।
মানববন্ধন পরবর্তী সমাবেশে বক্তব্য দেন অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা রাসেল পারভেজ, শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী সাব্বির আহমেদ, ফার্মেসি বিভাগের ওমর ফারুক, ফিশারিজ এন্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী আল-আমিন, শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী রায়হান উদ্দিন ও ফিজিওথেরাপি এন্ড রিহ্যাবিলিটেশন বিভাগের স্নাতকের শিক্ষার্থী আহমাদুল্লাহ হিল গালিব প্রমুখ।
মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা জানান, একটি স্বাধীন দেশে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়াকে কেন্দ্র করে হত্যাকান্ডের ঘটনা হতাশাজনক। দেশে আইন থাকা সত্তে¡ও স্বপ্রনোদিত হয়ে এ ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড দেশের ছাত্র সমাজ মেনে নিবে না, প্রয়োজনে আরও কঠোর আন্দোলন কর্মসূচী গ্রহন করা হবে। আবরার হত্যার দ্রæত বিচার দাবি করে, দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সন্ত্রাস মুক্ত করতে সরকারের কাছে দাবি জানান।
অবিলম্বে আবরার ফাহাদের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতকরণ ও ভবিষ্যতে আর কোনো আবরারকে এমন নির্মমতার শিকার হতে না হয়, রাষ্ট্রের কাছে সেই দাবি তুলে ধরেন মানববন্ধনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের হাতে ছিল বাক স্বাধীনতার দাবি এবং বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যার প্রতিবাদে বিভিন্ন ¯েøাগান খচিত প্লাকার্ড।
মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা ‘ক্যাম্পাসে হত্যাকান্ড, প্রশাসন জবাব চাই’, ‘আবরার হত্যার বিচার চাই, ভাইকে হত্যার বিচার চাই’, ‘ক্যাম্পাসে সন্ত্রাস রুখে দাঁড়াও ছাত্রসমাজ’ বঙ্গবন্ধুর বাংলায়, হত্যাকারীর ঠাঁই নাই প্রভৃৃতি ¯েøাগান লেখা প্লাকার্ড বহন করেন।
প্রসঙ্গত, ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেওয়ার জেরে শিবির সন্দেহে আবরার ফাহাদকে রোববার (৬ অক্টোবর) রাতে ডেকে নিয়ে যায় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। এরপর রাত ৩টার দিকে শেরেবাংলা হলের নিচতলা ও দুইতলার সিঁড়ির করিডোর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।
এই ঘটনায় আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে রাজধানীর চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। নিহত আবরার বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষেও শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন।