কমতে শুরু করেছে নদ-নদীর পানি, বন্যার আশঙ্কা কম

কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি ও ভারতে গঙ্গার পানি বৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশের নদ-নদীর পানি বেড়ে অনেক জায়গায় বিপৎসীমা অতিক্রম করেছিল। তবে বর্তমানে রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজবাড়ীসহ ১৮ জেলার নদ-নদীর পানি কমতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

এদিকে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ, গোয়ালন্দ, কামারখালী এলাকায় পদ্মার পানি এখনও বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যদিও আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত কমে আসবে। ফলে এখন আর বড় ধরনের কোনো বিপদের আশঙ্কা নেই।

শনিবার (৫ অক্টোবর) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের পূর্বাভাসের তথ্যানুযায়ী, গেল কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে দেশের প্রায় ২০ জেলায় অস্বাভাবিকভাবে পানি বৃদ্ধি পায়। বর্তমানে পাবনার হার্ডিঞ্জ ব্রিজ এলাকায় পদ্মার পানি বিপৎসীমার ১৪ দশমিক ২৮ সেন্টিমিটার এবং গোয়ালন্দে ৮ দশমিক ৬৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া কুষ্টিয়ার কামারখালী এলাকায় গড়াই নদের পানি বিপৎসীমার ৮ দশমিক ৩৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বৃষ্টি না হলে পানি আরও কমবে বলে জানিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

এ প্রসঙ্গে মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ মোহাম্মদ কামাল জানান, টানা বৃষ্টি ও ভারতে গঙ্গার পানি বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশে পদ্মার পানি বৃদ্ধি পায়। এতে রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ফরিদপুর, রাজবাড়ীসহ মোট ১৮ জেলা বেশি মাত্রায় প্লাবিত হয়। এসব জেলায় এরই মধ্যে জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে প্রাথমিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। যেসব এলাকার বাড়িঘর বেশি মাত্রায় প্লাবিত হয়েছে সেসব এলাকার মানুষদের আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নিয়ে তাদের সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বৃষ্টিপাত কমে আসায় এখন পানি নামতে শুরু করেছে। এখন আর বড় ধরনের কোনো বিপদের আশঙ্কা নেই। তবে সরকার সবধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।

উল্লেখ্য, ভারতে অস্বাভাবিক বৃষ্টির কারণে গঙ্গার পানি বেড়ে যাওয়ায় হঠাৎ বন্যার কবলে পড়ে বাংলাদেশের কিছু অংশ। দেশের ২০ জেলায় বৃষ্টিপাত হলেও সাত জেলায় অস্বাভাবিকভাবে পানি বেড়ে যায়। পদ্মা অববাহিকার তিনটি নদ-নদীর পানি এখনও বিপৎসীমার মধ্যে রয়েছে।