পাবনার পদ্মায় ১৬ বছরের রেকর্ড ভেঙ্গে ৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে : ৩ ইউনিয়নের ১০ গ্রাম প্লাবিত

পাবনার পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি বিপদসীমার ৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবার সকালে বিপদসীমা ১৪ দশমিক ২৫ সেন্টিমিটার অতিক্রম করে ৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পদ্মার পানি। যা ১৬ বছরের রেকর্ড ভেঙ্গে গেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী, সাড়া ও লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের ১০ টি গ্রামের নিম্নাঞ্চলের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ডুবে গেছে শীতকালিন সবজিসহ বিভিন্ন ফসল। তবে এই পানির স্থায়ীত্ব স্বল্পদিনের এমন দাবী করেছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের। গত সোম ও মঙ্গলবার বিপদসীমার ১৪ দশমিক ২৫ সেন্টিমিটার অতিক্রম করে। বুধবার সকালে এসে পানির সার্বিক পরিমাপে ৭ সেন্টিমিটার বৃদ্ধিতে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধির ফলে নিম্নাঞ্চলের মানুষেরা গবাদি পশু নিয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন। অনেকে বাড়ি ছেড়ে আশ্রয় নিয়েছেন উঁচু এলাকার স্বজনদের বাড়িতে।

স্থানীয়রা বলছেন, ২০০৩ সালে পদ্মার এই পয়েন্টে পানি বিপদ সীমা অতিক্রম করেছিল। যা ১৬ বছরের রেকর্ড অতিক্রম করেছে এবার। এছাড়াও জেলায় যমুনা, চলনবিল, গৌমতি, চিকনাই ও ইছামতিতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, পদ্মায় পানি বৃদ্ধির ফলে পানিবন্দি মানুষের সহায়তার হাত বাড়ায়নি প্রশাসন। এদিকে বুধবার বিকেলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে জেলা প্রশাসক গণমাধ্যম কর্মিদের সাথে বৈঠক করেছেন। ক্ষতিগ্রস্ত ও পানিবন্দিদের সব ধরণের সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী জহুরল ইসলাম জানান, পানি বাড়লেও ভয়াবহ বন্যার আশঙ্কা নেই। কিছুদিনের মধ্যে পানি নেমে যাবে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে উজানে প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণে এই পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

কামাল সিদ্দিকী, পাবনা।