টেলিগ্রামে শিক্ষক হত্যার অনুমতি নেয় সাইফুল্লাহ

মাদারীপুরের কলেজ শিক্ষক রিপন চক্রবর্তীমাদারীপুরের কলেজ শিক্ষক রিপন চক্রবর্তী (৪০) হত্যার চেষ্টার পরিকল্পনাকারী খালেদ সাইফুল্লাহ (জামিল) ওরফে আফিফ কাইফি ওরফে পথভোলা পথিককে গ্রেফতার করেছে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট (সিটি)।

হামলার এক মাস আগে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। তাদের দলনেতা কথিত আমিররের কাছে হত্যার জন্য অনলাইন অ্যাপস ‘টেলিগ্রাম’র মাধ্যমে অনুমতি নেয় সাইফুল। শুক্রবার (০১ জুলাই) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও সিটি প্রধান মনিরুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার (জুন ৩০) রাতে ঢাকার ডেমরা বাদশামিয়া রোড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

মনিরুল ইসলাম বলেন, হত্যার পরিকল্পনাকারী সাইফুল্লাহ। এই ঘটনায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ফায়জুল্লাহ ফাহিম ছাড়াও আরও দু’জন জড়িত। আমরা তাদের শনাক্ত করেছি। তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, ৪৯ জনের একটি সুসংগঠিত গ্রুপ রয়েছে। তারা জামায়াতে মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) মতাদর্শে বিশ্বাসী।

এই গ্রুপের টার্গেট ছিলো সংখ্যালঘু, পুলিশ, পীর ও মাজারের খাদেমদের হত্যার মাধ্যমে সরকারকে বিপদে ফেলা। সরকারকে উৎখাত করে ইসলামী রাষ্ট্র কায়েম করা বলেও জানান মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃত সাইফুল্লাহ কাছ থেকে দু’টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। যেখান থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের টার্গেট করা কিছু ব্যক্তি আছে, তবে স্পষ্টভাবে কারও নাম উল্লেখ নেই। গত ১৫ জুন মাদারীপুর নাজিমুদ্দীন কলেজের গণিতের প্রভাষক রিপন চক্রবর্তীর ওপর কলেজের পাশে তার ভাড়ায় বাসায় হামলা চালিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জঘম করা হয়।