আতঙ্ক আর মৃত্যুদন্ডের দেশে পরিণত এখন বাংলাদেশ: বিএনপি

রিজভী

চিহ্নিত খুনিরাও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের লোক হওয়ায় রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।বাংলাদেশ এখন আতঙ্ক, সিরিয়াল কিলিং, হাতকড়া অবস্থায় রিমান্ডে হত্যা ও মৃত্যুদন্ডের দেশে পরিণত হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তিনি।

ঈদুল ফিতরের প্রাক্কালে মানুষের মনে উৎসবের কোনো আনন্দ নেই দাবি করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, দেশ আজ ব্যাপক গ্রেপ্তার, আটক অবস্থায় অমানুষিক নির্যাতন, নিরপরাধ মানুষকে গ্রেপ্তার করে টাকা আদায় আর মৃত্যুদন্ডের দেশে পরিণত হয়েছে। পুলিশের হয়রানি আর বিচার ও প্রশাসনের রোষের শিকার হওয়া এখন মানুষের ভাগ্যটীকা হয়ে গেছে।তিনি বলেন, এ দেশে অসংখ্য চিহ্নিত হত্যাকারী সরকারি দলের লোক হওয়ার কারণে রাষ্ট্রপতির ক্ষমা লাভ করে। আর বিএনপিসহ বিরোধী দলের লোকেরা গণতন্ত্রের কথা বললে ভয়াবহ মামলায় জড়িয়ে কারাগারে ঢোকানো হয়। আওয়ামী মন্ত্রী-এমপির পুত্র-জামাইরা প্রকাশ্যে খুন করার পর কারাগারে তাদের ফ্রিজ-টিভিসহ জামাই আদরে রাখা হয়। অন্যদিকে, বিএনপি নেতাকর্মীদের শুধুমাত্র রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের অপরাধে গ্রেপ্তার করে স্বীকারোক্তি আদায়ের জন্য রিমান্ডে নির্যাতন করে দেহ থেঁতলে দেয়া হয়।

রিজভী বলেন, ‘ঈদের প্রাক্কালে চারদিকে আতঙ্ক আরও বেশি মাত্রায় ছড়িয়ে দিয়ে শাসক দলের ক্যাডাররা দেশব্যাপী শুরু করেছে সীমাহীন চাঁদাবাজি। অফিস, আদালত, দোকানপাট, ব্যবসা-বাণিজ্য সর্বত্রই আওয়ামী ক্যাডারদের অব্যাহত চাঁদাবাজিতে দেশবাসী অতিষ্ঠ। জবরদস্তিমূলকভাবে দেশ শাসনকারীরা রক্তপিপাসু জীব হয়েই রাষ্ট্রযন্ত্রের ড্রাইভিং সিটে বসে আছে। আর তাই জনমত, জবাবদিহিতা, দায়বদ্ধতা ইত্যাদি পরিভাষাগুলো ভোটারবিহীন শাসকগোষ্ঠী অ্যাম্বুলেন্সে করে গোরস্থানে সমাহিত করেছে।বিএনপির এই নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নিজের ভাষ্য অনুযায়ী, প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য তিনি রাজনীতিতে এসেছেন। তাই মাস্টারপ্ল্যানের অংশ হিসেবে ক্ষমতায় এসেই প্রথমে গণতন্ত্রকে জবাই করে তার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীদের বিরুদ্ধে বিরামহীন প্রতিশোধ গ্রহণ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর মন ও ভাবনা হচ্ছে-গণতন্ত্র, অবাধ ও নিরপেক্ষ ভোট এবং মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দিয়ে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করা। সেই জন্যই জনগণের ইচ্ছা-অনিচ্ছাকে অবজ্ঞা করে পলপট, হিটলারের মতো পৃথিবীর রক্তপিপাসু ফ্যাসিস্ট একনায়কদের সর্বনাশা পথ অনুসরণ করছেন শেখ হাসিনা।এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, সে কারণেই দেশের জনগণকে নয়, শুধু একটি পছন্দসই দেশকে খুশি করতে চান প্রধানমন্ত্রী। এরই অংশ হিসেবে দেশি-বিদেশি পরিবেশবাদীদের নিষেধ ও দেশের মানুষের প্রতিবাদকে উপেক্ষা করে পরিবেশবিনাশী কয়লা পুড়িয়ে রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। ১৯২ টাকায় ট্রানজিটের নামে করিডোর দেয়া হয়েছে শুধুমাত্র সেই দেশকেই খুশি করার জন্য।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, একদিকে অসংখ্য চিহ্নিত হত্যাকারী ক্ষমতাসীন দলের লোক হওয়ার কারণে রাষ্ট্রপতির ক্ষমা লাভ করছে। অন্যদিকে বিএনপিসহ বিরোধী দলের লোকদের মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে কারাগারে ঢোকানো হচ্ছে।হায় কী সেলুকাস! কী বিচিত্র এই দেশ! এভাবে দেশে আইনের দুইরকম প্রয়োগ চলছে।আদালতে দন্ডিত কাউকে ক্ষমা করার অধিকার সংবিধান রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে। বিএনপি এবং আওয়ামী লীগের উভয় দলের শাসনামলেই এর প্রয়োগ দেখা যায়।আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বিগত মহাজোট সরকার আমলে রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পেয়েছেন মৃত্যুদন্ড পাওয়া ২৬ জন, যাদের মধ্যে বহুল আলোচিত নুরুল ইসলাম হত্যা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি এ এইচ এম বিপ্লবও রয়েছেন।মহাজোট আমলে ক্ষমা পাওয়াদের মধ্যে লক্ষ্মীপুরের আওয়ামী লীগ নেতা আবু তাহেরের ছেলে বিপ্লবের মৃত্যুদন্ড মওকুফ নিয়ে আওয়ামী লীগকে ব্যাপক সমালোচনায় পড়তে হয়।

লক্ষ্মীপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলামকে হত্যার পর তার লাশ টুকরা টুকরা করে মেঘনা নদীতে ফেলে দেয়া হয়েছিল। ওই মামলায় বিপ্লবকে মৃত্যুদ- দিয়েছিল বিচারিক আদালত।অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াত জোট ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারে শাসনামল মিলিয়ে আট বছরে রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পান চারজন, যার মধ্যে মৃত্যুদ-ে দ-িত মহিউদ্দিন ঝিন্টুর নাম ব্যাপক আলোচিত।সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহীর তানোর পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমানের গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে তার মুক্তি দাবি করেন রিজভী।

ভিজিএফের চাল আত্মসাতের অভিযোগে তানোর উপজেলা যুবদলের সভাপতি মিজানকে বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।ঈদের আগে ভীতি ছড়িয়ে সরকারি দলের ক্যাডাররা সারা দেশে চাঁদাবাজি করছে বলে সাংবাদিকদের সামনে অভিযোগ করেন রিজভী।অফিস-আদালত-দোকানপাট, ব্যবসা-বাণিজ্য সর্বত্র আওয়ামী চাঁদাবাজিতে দেশবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। জবরদস্তিমূলক সরকার রক্তপিপাসু জীব হয়ে রাষ্ট্রযন্ত্রের ড্রাইভিং সিটে বসে। দেশের জনগণ অবৈধ সরকারের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে দাবি করে এই বিএনপি নেতা বলেন, সেজন্য ক্ষমতা জোর করে টিকিয়ে রাখতে ভারতের সমর্থন পাওয়ার জন্য তাদের কাছে দেশকে ক্রমান্বয়ে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত করে দিতে একের পর এক পদক্ষেপ বাস্তবায়িত করা হচ্ছে।বাংলাদেশে দুঃশাসনের রথচক্র অব্যাহত গতিতে চালানোর জন্য একমাত্র ভারতের সাথেই প্যাকেজ প্রোগ্রাম’ই হচ্ছে শেখ হাসিনা সরকারের টিকে থাকার নিশ্চয়তা।সংবাদ সম্মেলনে এসময় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।